সিপিএলে ব্রাভোর তাণ্ডব

নায়ক হতে পারতেন ডেভিড ওয়ার্নার কিংবা কাইরন পোলার্ড। তবে সবাইকে ছাপিয়ে গেলেন ড্যারেন ব্রাভো। ব্যাট হাতে তাণ্ডব চালিয়ে মাত্র ৩৬ বলে ৯৪ রানের টর্নেডো ইনিংস খেলেছেন ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ব্যাটসম্যান। তাতে সিপিএলে রান-বন্যার ম্যাচে সেন্ট লুসিয়া স্টারসকে ৫ উইকেটে হারিয়েছে ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্স। ২১৩ রানের লক্ষ্য তারা পেরিয়ে গেছে ১ বল বাকি থাকতে।

সেন্ট লুসিয়ার ড্যারেন স্যামি স্টেডিয়ামে বাংলাদেশ সময় শুক্রবার ভোরে বড় লক্ষ্য তাড়ায় ২০ রানেই দুই ওপেনার সুনীল নারিন ও ক্রিস লিনকে হারিয়েছিল ত্রিনবাগো। ব্রেন্ডন ম্যাককালামের সঙ্গে দলকে ৭১ পর্যন্ত টেনে নেন কলিন মানরো (২৫)। এরপরই উইকেটে এসেছিলেন ব্রাভো। বাঁহাতি ব্যাটসম্যান শুরু থেকেই চালিয়েছেন তাণ্ডব।

শেষ পাঁচ ওভারে ত্রিনবাগোর দরকার ছিল ৮৫ রান। ১৬তম ওভারে কাইরন পোলার্ডকে পাঁচ ছক্কা হাঁকিয়ে ব্রাভো তোলেন ৩২ রান! প্রথম চার বলে চার ছক্কা হাঁকানোর পথে ফিফটি তুলে নেন ২৩ বলে। পঞ্চম বলে ডাবল নিয়ে শেষ বলে আবার ছক্কা।

শেষ দুই ওভারে সমীকরণটা নেমে আসে মাত্র ৫ রানে। ১৯তম ওভারে মিচেল ম্যাকক্লেনাগান ২ রান দিয়ে ম্যাককালাম ও জ্যাভন সিয়ারলেসের উইকেট তুলে নিলেও ত্রিনবাগোর বাকি কাজটা সারেন ব্রাভো ও দিনেশ রামদিন। মাত্র ৩৬ বলে ১০ ছক্কা ও ৬ চারে ৯৪ রানে অপরাজিত ছিলেন ব্রাভো। তার সঙ্গে ১৩৭ রানের জুটি গড়ার পথে ম্যাককালাম ৪২ বলে করেন ৬৮।

এর আগে ওয়ার্নার, পোলার্ড ও রাকিম কর্নওয়ালের ফিফটিতে দুইশ ছাড়ানো পুঁজি পেয়েছিল সেন্ট লুসিয়া। ওয়ার্নার ৫৫ বলে ৭২*, কর্নওয়াল ২৯ বলে ৫৩ ও পোলার্ড ২৩ বলে ৭ ছক্কায় করেন ৬৫* রান। তবে তাদের ছাপিয়ে ম্যাচের নায়ক ব্রাভো।

এই ম্যাচে ছক্কা হয়েছে মোট ৩৪টি (সেন্ট লুসিয়া ১৬টি, ত্রিনবাগো ১৮টি), কোনো টি-টেয়েন্টি ম্যাচে যা সর্বোচ্চ। ২০১৬ সালে নিউজিল্যান্ডের সুপার স্মাশে সেন্ট্রাল ডিসট্রিক্টস ও ওটাগো ম্যাচেও হয়েছিল ৩৪ ছক্কা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *