হরতালে যান চলাচল স্বাভাবিক

সন্ধ্যা হরতাল চলছে। বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা থেকে রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশে হরতাল শুরু হয়। তবে রাজধানীর কোথাও হরতালের লেশমাত্র নেই। সকাল থেকে হরতাল আহ্বানকারীদের কোনো নেতাকর্মীকে রাজপথে দেখা যায়নি। অন্যান্য কর্মদিবসের মতো বৃহস্পতিবার রাস্তায় সব ধরনের যান চলাচল করছে।

সকালে রাজধানীর মতিঝিল, মালিবাগ, রামপুরা, হতিরঝিল, বাড্ডা, যাত্রবাড়ী, মহাখালী, বনানী ও উত্তরা এলাকা ঘুরে এমন চিত্রই দেখা গেছে।

মহাখালীতে সকালে যানবহন কম দেখা গেলেও বেলা বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে যানবহন চলাচল বাড়ছে।

উত্তরা থেকে শতাব্দী পরিবহনে করে মহাখালী এসেছেন শফিকুর রহমান। তিনি বলেন, হরতালে রাস্তায় কোনো প্রতিবন্ধকতা নেই।

দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের সার্জেন্ট আবুল কাশেম জানান, মহাখালীতে স্বাভাবিক দিনের মতোই যানবাহন চলছে।

এদিকে, হরতালে যেকোনো ধরনের নাশকতা এড়াতে কঠোর অবস্থানে রয়েছেন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা। রাজধানী গুরুত্বপূর্ণ পয়েন্টগুলোতে পুলিশের পাশাপাশি র‌্যাব সদস্যদের উপস্থিতি লক্ষ করা গেছে।

বাড্ডার ওসি কাজী ওয়াজেদ মিয়া জানান, বাড্ডার রাস্তায় যান চলাচল স্বাভাবিক। কোনো অপ্রীতিকর কিছু ঘটেনি। এখন পর্যন্ত মাঠে জামায়াতের নেতাকর্মীদের দেখা যায়নি। বাড়তি পুলিশ সদস্যরা বিভিন্ন স্থানে দায়িত্ব পালন করছে।

যাত্রাবাড়ী মোড়ে হরতালের দায়িত্বপালনরত এসআই বিলাল আল আজাদ নতুন সময়কে বলেন, ভোর ৫টা থেকে হরতাল ডিউটি করছি। এখন পর্যন্ত অপ্রীতিকর কোনো কিছু চোখে পড়েনি। রাস্তায় যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে।

যাত্রাবাড়ীর থানার অফিসার ইনচার্জ আনিসুর রহমান বলেন, সকাল থেকে যান চলাচল স্বাভাবিক রয়েছে। অপ্রীতিকর কিছু ঘটেনি।

এদিকে হরতালে রাজধানীতে বিভিন্ন জেলা থেকে আগত যান চলাচলও রয়েছে স্বাভাবিক। সকালে তিশা, মায়ের দোয়া, মেঘালয়, রয়েল পরিবহন যাত্রী নিয়ে সায়েদাবাদ বাস টার্মিনালে পৌঁছেছে।পথে অপ্রীতিকর কোনো কিছু ঘটেনি বলে জানিয়েছেন চালকরা। তবে কুমিল্লা, নোয়াখালী, চাঁদপুর থেকে অন্যান্য দিনের চেয়ে কম সংখ্যক পরিবহন ঢাকায় এসেছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

মাওয়া ও দোহার নবাবগঞ্জ থেকে ছেড়ে আসা বেশ কয়েকটি পরিবহন চালকের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, অন্যান্য দিনের মতো হরতালেও তারা স্বাভাবিকভাবেই যাত্রীদের নিয়ে ঢাকা পৌঁছাতে পেরেছেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Shares