হাইতিতে ভূমিকম্পে নিহত ১১

ক্যারিবীয় দেশ হাইতিতে ভূমিকম্পে বেশ কয়েকটি ভবন ধসে অন্তত ১১ জন নিহত হয়েছে বলে জানিয়েছেন কর্মকর্তারা।

শনিবার রাতে অনুভূত ৫ দশমিক ৯ মাত্রার ভূমিকম্পটিতে আরও শতাধিক লোক আহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন তারা, খবর বার্তা সংস্থা রয়টার্সের।

যুক্তরাষ্ট্রের ভূতাত্ত্বিক জরিপ সংস্থা (ইউএসজিএস) জানিয়েছে, ভূমিকম্পটির উপকেন্দ্র পোর্ট-দে-পে শহর থেকে ২০ কিলোমিটার পশ্চিম-উত্তরপশ্চিমে এবং এর উৎপত্তি ভূপৃষ্ঠের ১১ দশমিক সাত কিলোমিটার গভীরে।

দেশটির উত্তরপশ্চিমাঞ্চলের পুলিশ প্রধান জ্যাকসন হিলা জানিয়েছেন, পোর্ট-দে-পেতে অন্তত সাত জন নিহত ও শতাধিক লোক আহত হয়েছে।

পোর্ট-দে-পের দক্ষিণে গ্রো মোর্ন শহরে ও এর আশপাশে আরও চার জন নিহত হয়েছেন বলে জানিয়েছেন মেয়র জ্য রেনেল তাইদ। এদের মধ্যে ধসে পড়া ভবনের আঘাতে নিহত একটি বালকও রয়েছে।

এই ভূমিকম্পের কারণে উত্তরাঞ্চলীয় শহরগুলোতে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে, বেসামরিক প্রতিরক্ষা সংস্থার এমন প্রতিবেদনের পর এক টুইটে লোকজনের প্রতি শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন হাইতির প্রেসিডেন্ট জোভনেল ময়েজ।

সংস্থাটি জানিয়েছে, পোর্ট-দে-পে, গ্রো মোর্ন, শানসোলমে এবং তরতুগা দ্বীপে সবচেয়ে বেশি ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এসব এলাকার বেশ কিছু বাড়ি ধ্বংস হয়েছে।

লে নুভেলিস্তা সংবাদপত্র জানিয়েছে, গ্রো মোর্নে একটি মিলনায়তন ধসে একজন নিহত হয়েছে এবং পুলিশের একটি হাজত ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পর আটককৃতদের ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।

ভূমিকম্পটি রাজধানী পোর্ট-অ-প্রিন্সে অনুভূত হলেও সেখানে বড় ধরনের কোনো ক্ষয়ক্ষতি হয়নি বলে টুইটারে আসা প্রাথমিক প্রতিবেদনে জানা গেছে।

২০১০ সালে পোর্ট-অ-প্রিন্সের কাছে উৎপত্তি হওয়া ৭ মাত্রার ভূমিকম্পের পর এটিই হাইতিতে হওয়া সবচেয়ে শক্তিশালী ভূমিকম্প। প্রায় আট বছর আগের ওই ভূমিকম্পটিতে হাজার হাজার লোক নিহত হয়েছিল।

Leave a Reply