২ চুলা ৯৭৫ টাকা আর ১ চুলার খরচ ৯২৫ টাকা

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন (বিইআরসি) গ্যাসের দাম বাড়ানোর ঘোষণা দিয়েছে। আবাসিক খাতে দুই চুলার খরচ ৮০০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯৭৫ টাকা আর এক চুলার খরচ ৭৫০ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯২৫ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে।

আজ রবিবার বিকালে একটি সংবাদ সম্মেলনে এই ঘোষণা দিয়েছে বিইআরসি। ১ জুলাই থেকে নতুন দাম কার্যকর হবে।

প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম ৭ দশমিক ৩৮ টাকা থেকে ২ দশমিক ৪২ টাকা বাড়িয়ে ৯ দশমিক ৪০ টাকা নির্ধারণ করা হয়েছে। সিএনজি গ্যাসের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে প্রতি ঘনমিটার ৪৩ টাকা এবং বিদ্যুৎ ও সারের জন্য ৪ দশমিক ৪৫ টাকা।

এ নিয়ে গত ১১ জুন থেকে ১৪ জুন পর্যন্ত রাজধানীর কারওয়ান বাজারের ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) মিলনায়তনে চলে শুনানি। শুনানি শেষে বিভিন্ন দিক বিবেচনা করে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিইআরসি।

বিইআরসি সূত্র জানায়, সব শ্রেণির গ্যাসের দাম গড়ে ৬৬ শতাংশ বাড়ানোর প্রস্তাব দিয়েছে গ্যাস সঞ্চালন ও বিতরণ কোম্পানিগুলো। গৃহস্থালিতে ব্যবহৃত দুই চুলার গ্যাসের বিদ্যমান দাম ৮৫০ থেকে এক হাজার ২০০ টাকা নির্ধারণ করতে চায় তারা। সিএনজির দাম বৃদ্ধির হার সবচেয়ে বেশি হতে পারে।

এ বিষয়ে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, মূলত আমদানি করা তরল প্রাকৃতিক গ্যাসের (এলএনজি) কারণে এ খাতের ব্যয় বেড়েছে। গত বছর পেট্রোবাংলা-এক্সিলারেট এনার্জির এলএনজি পাইপলাইনে যুক্ত হয়েছে। এ বছরের মাঝামাঝি সময়ে সামিটের এলএনজিও পাইপলাইনে যুক্ত হবে। সব মিলিয়ে চলতি বছর ১০০ কোটি ঘনফুট গ্যাস সমতুল্য এলএনজি গ্রিডে আসবে, যা বর্তমানে দেশে উৎপাদিত গ্যাসের প্রায় এক-তৃতীয়াংশ। ব্যয়বহুল এু্ তরলীকৃত গ্যাসের দাম সমন্বয়ের জন্যই গ্রাহক পর্যায়ে দাম বৃদ্ধির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

তবে দেশের জ্বালানি বিশেষজ্ঞরা বলছেন, এ মুহূর্তে গ্যাসের দাম বৃদ্ধি উচিত হবে না। তাদের মতে, সর্বশেষ গ্যাসের দাম বাড়ানোর উদ্যোগ নিয়েছিল সরকার গত বছর অক্টোবরে। সে বছরের ১১-২১ জুন পর্যন্ত গণশুনানিও করে বিইআরসি। কিন্তু নির্বাচন সামনে থাকায় গ্যাসের বর্ধিত মূল্য দিতে হয়নি গ্রাহকদের।

এর আগে ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে গ্যাসের দাম গড়ে ২২ দশমিক ৭০ শতাংশ বাড়ানো হয়। সে বছরের মার্চ ও জুলাই থেকে দুই ধাপে তা কার্যকর করার কথা ছিল। আদালতের রায়ের কারণে প্রথম ধাপের দাম বৃদ্ধি কার্যকর হলেও দ্বিতীয় ধাপ কার্যকর হয়নি।