করোনা ভাইরাস: চীনে ‘মৃত্যুর পথে’ ৩০ কোটি মুরগি

Advertisements

করোনা ভাইরাসে বিপর্যস্ত চীনের হুবেই প্রদেশে ৩০ কোটিরও বেশি মুরগি মৃত্যুর পথে রয়েছে। প্রাণঘাতী করোনা ভাইরাস সেখানে মহামারি আকার ধারণ করার পর অঞ্চলটির সঙ্গে ইতোমধ্যেই চীনের অন্যান্য শহরের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয়েছে। ফলে প্রাণীদের খাবার সরবরাহ ব্যবস্থাও বন্ধ হয়েছে। এতে করেই বিপন্ন হয়ে পড়েছে বিপুল সংখ্যক মুরগি। শুক্রবার (৩০ জানুয়ারি) এক প্রতিবেদনে এ খবর জানিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ব্লুমবার্গ।


ইতোমধ্যেই স্থানীয় পোল্ট্রি অ্যাসোসিয়েশন সরকারের কাছে জরুরিভিত্তিতে প্রয়োজনীয় প্রাণী খাদ্য সরবরাহের আহ্বান জানিয়ে চিঠি দিয়েছে। তবে এ ব্যাপারে এখনও কর্তৃপক্ষের কোনও সাড়া পাওয়া যায়নি।

চীনের ৩১টি প্রদেশের সবগুলোতে এবং বিশ্বের অন্তত ১৮টি দেশে করোনা ভাইরাস শনাক্ত হওয়ার পর বিশ্বজুড়ে জরুরি স্বাস্থ্য পরিস্থিতি ঘোষণা করেছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (ডব্লিউএইচও)। ভাইরাস সংক্রমণের কারণে চীন ভ্রমণে কড়াকড়ি আরোপ করেছে বেশ কিছু দেশ। চীনের হুবেই প্রদেশের উহান শহর থেকে ভাইরাসটি ছড়িয়ে পড়ে। দেশটিতে শনিবার পর্যন্ত এতে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ২৫৯ জনের। আর আক্রান্ত হয়েছে ১১ হাজার ৭৯১ জন।

সম্প্রতি করোনা ভাইরাস মহামারি আকার ধারণ করলে উহান শহরে সাধারণ মানুষের চলাচলে বিধিনিষেধ ও যোগাযোগে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে কর্তৃপক্ষ। ফলে কার্যত হুবেই প্রদেশ যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। এতে পণ্যসামগ্রীর বাজারগুলো মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। ইতোমধ্যেই অঞ্চলটিতে অপরিশোধিত সয়াবিনের ঘাটতি দেখা দিয়েছে।

প্রাদেশিক সরকারের কৃষি বিভাগের তথ্য অনুযায়ী, এ সপ্তাহেই শেষ হবে হুবেই প্রদেশের অধিকাংশ খামারের প্রাণীদের খাদ্য। প্রদেশটিতে প্রাণী খাদ্যের জন্য প্রতিদিন এক হাজার ৮০০ টন শস্য ও এক হাজার ২০০ টন সয়ামিল প্রস্তুত হয়। সে হিসাবে ইতোমধ্যেই সেখানে এ ধরনের ৬ লাখ টন খাদ্যের ঘাটতি দেখা দেওয়া কথা।

চীনের অ্যানিমেল অ্যাগ্রিকালচার অ্যাসোসিয়েশনের (সিএএএ) এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, সিএএএ দ্রুততার সঙ্গে দেশের খাদ্য উৎপাদনকারীদের ১৮ হাজার টন শস্য ও ১২ হাজার সয়ামিল হুবেইতে পাঠানোর আহ্বান জানিয়েছে।

হুবেই হচ্ছে চীনের ৬ষ্ঠ বৃহৎ পোল্টি উৎপাদনকারী প্রদেশ। দেশটির বার্ষিক ডিম উৎপাদনের পাঁচ শতাংশই আসে এই প্রদেশ থেকে। ৩ ফেব্রুয়ারি চীন এ সংক্রান্ত বাণিজ্য পুনরায় শুরু করার পর ডিমের ভবিষ্যৎ দাম নির্ধারণ করবে চীনের দালিয়ান কমোডিটি এক্সচেঞ্জ।