এবার প্রিমিয়ার লিগেও নিষিদ্ধ হতে পারে ম্যানসিটি!

Advertisements

দুঃসময় পিছু ছাড়ছে না ম্যানচেস্টার সিটির। সম্প্রতি ইউরোপীয় ক্লাব ফুটবলের সর্বোচ্চ সংস্থা উয়েফার ‘ফিন্যান্সিয়াল ফেয়ার প্লে’ (এফএফপি) ভঙ্গের অভিযোগে দুই মৌসুমের জন্য চ্যাম্পিয়নস লিগে নিষিদ্ধ হয়েছে সিটিজেনরা। নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে জুটেছে ৩০ মিলিয়ন ইউরো জরিমানা।

এবার একই কারণে ইংলিশ প্রিমিয়ার লিগেও নিষিদ্ধ হতে পারে গত আসরের চ্যাম্পিয়নরা। নিষিদ্ধ না হলেও চলতি মৌসুমে অর্জিত পয়েন্টের কিছু কাটা যেতে পারে ম্যানচেস্টার সিটির। এমনটি রেলিগেশনের শঙ্কাও রয়েছে। কয়েকটি বৃটিশ গণমাধ্যম এমনটাই দাবি করেছে।

অবশ্য সিটিজেনরা ঘরোয়া ফুটবলে কত বছর নিষিদ্ধ হতে পারে বা কত পয়েন্ট কাটা যেতে পারে তা এখনও অনির্দিষ্ট। তবে দ্য গার্ডিয়ান ও দ্য ইন্ডিপেন্ডেন্ট’র মতো গণমাধ্যমগুলোর দাবি, ম্যানসিটিকে শাস্তি দেওয়ার ব্যাপারে ইতোমধ্যে বৈঠক করেছে প্রিমিয়ার লিগ কমিটি।

উয়েফার আর্থিক নীতি ভঙ্গ (এফএফপি) করায় আগামী (২০২০-২১) ও (২০২১-২২) মৌসুমে চ্যাম্পিয়নস লিগে খেলতে পারবে না সিটিজেনরা।

নিষিদ্ধ হওয়ার পরপরই সিটি জানায়, তারা এ সিদ্ধান্তে হতাশ, কিন্তু অবাক নয়। এ বিষয়ে খেলাধুলার সর্বোচ্চ আদালত সিএএস’র কাছে আবেদন করা হবে। আপিল করার পর সাজা বদলাবে বলে এক বার্তায় আশাবাদ প্রকাশ করেছে সিটি।

পেপ গার্দিওলার অধীনে টানা দুই মৌসুম প্রিমিয়ার লিগ জিতেছে সিটি। ঘরে তুলেছে ইএফএল কাপও। কিন্তু ইতিহাদের ক্লাবটির অভাব কেবল চ্যাম্পিয়নস লিগের। গার্দিওলা এখনও সিটির অধরা আশাটুকু পূর্ণ করতে পারেননি। এর মধ্যে উল্টো আগামী দুই মৌসুম চ্যাম্পিয়নস লিগে অংশ নিতে পারবেন না গার্দিওলার শিষ্যরা। উয়েফার তদন্তে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় নিষিদ্ধ করা হয় সিটিকে।

উয়েফার যে আর্থিক নীতি, সেটি মূলত ফিনান্সিয়্যাল ফেয়ার প্লে বা এফএফপি নামেই পরিচিত। ২০১১ সাল থেকে এই নীতি চালু হয়েছে। দলবদলের বাজারে কোনো দল যেন অতিরিক্ত অর্থ খরচ করতে না পারে সেটা দেখভাল করাই এ নীতির উদ্দেশ্য।