আন্তর্জাতিক

কাশ্মীর নিয়ে জাতিসংঘে রুদ্ধদ্বার বৈঠক; পাকিস্তান বলেছে অভ্যন্তরীণ বিষয় নয়

Advertisements

কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে টানা দেড় ঘণ্টা রুদ্ধদ্বার বৈঠক হয়েছে। শুক্রবার অনুষ্ঠিত এ বৈঠকে কাশ্মীর সংকট নিয়ে চীন গভীর উদ্বেগ প্রকাশ কের। রাশিয়াও একই রকমের উদ্বেগ প্রকাশ করেছে তবে ভারত ও পাকিস্তানকে দ্বিপক্ষীয়ভাবে সমস্যা সমাধানের কথা বলেছে।

কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে শান্তি প্রতিষ্ঠা বিষয়ক জাতিসংঘের সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল অস্কার ফার্ন্দান্দেজ-তারাঙ্কো এবং শান্তিরক্ষা অপারেশনে সামরিক উপদেষ্টা কার্লোস হামবার্তো লোইটে’র বিবৃতি শোনে ১৫ সদস্যের পরিষদ। সেখানে কাশ্মীর সংকটকে গুরুতর উদ্বেগজনক বলে মন্তব্য করেছেন পরিষদের সদস্যরা। এরইমধ্যে উত্তেজনায় ভরা ও অত্যন্ত বিপজ্জনক পরিস্থিতিতে উসকানি বা প্ররোচণা না দিতে ভারত ও পাকিস্তান -কারো উচিত হবে না বলে মন্তব্য করা হয়েছে। ওদিকে নিরাপত্তা পরিষদের বাইরে বাকযুদ্ধ হয়েছে জাতিসংঘে নিযুক্ত পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত মালিহা লোদি ও ভারতের রাষ্ট্রদূত সৈয়দ আকবর উদ্দিনের মধ্যে।

রুদ্ধদ্বার বৈঠক শেষে মালিহা লোদি বলেন, ৫০ বছরেরও বেশি সময় পরে কাশ্মীর ইস্যুতে প্রথম বৈঠক করলো পরিষদ। এটা কেবল প্রথম পদক্ষেপ। এর মধ্যদিয়ে কাশ্মীরের জনগণকে সমর্থন দিয়ে যাবে ইসলামাবাদ। তিনি বলেন, ভারত দাবি করেছে কাশ্মীর বিষয়টি তাদের অভ্যন্তরীণ বিষয়। কিন্তু নিরাপত্তা পরিষদের এই বৈঠক তাদের সেই দাবিকে প্রত্যাখ্যান করে। এখন সারা বিশ্ব দখলীকৃত রাজ্য ও তাদের অবস্থা নিয়ে আলোচনা করছে।

চীন, ভারত ও পাকিস্তানের রাষ্ট্রদূত

গত ১৩ আগস্ট পাকিস্তান জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে বৈঠক আহ্বানের জন্য চিঠি লেখে। এরপরই পরিষদের স্থায়ী সদস্য চীনও একই আহ্বান জানায়।

ওদিকে, জাতিসংঘে চীনের রাষ্ট্রদূত ঝাং জুন সাংবাদিকদের বলেছেন, কাশ্মীর সংকটে নিরাপত্তা পরিষদের সদস্যরা গভীরভাবে উদ্বিগ্ন। ভয়াবহ পরিস্থিতিতে ভারত বা পাকিস্তান কারো প্ররোচনা দেয়া উচিত হবে না। তাদেরকে বিরত থাকতে হবে। জাতিসংঘে রাশিয়ার রাষ্ট্রদূত দমিত্রি পোলিয়ানস্কি বলেছেন, সংকটের বিষয়ে মস্কো উদ্বিগ্ন। তবে এটি একটি দ্বিপক্ষীয় ইস্যু। ইসলামাবাদ ও নয়াদিল্লিই সরাসরি উত্তমভাবে এর মোকাবিলা করতে পারে।