জাতীয়

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের সব প্রস্তুতি নিয়েছে সরকার

Advertisements

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন শুরু হওয়ার কথা আগামী বৃহস্পতিবার থেকে। এ জন্য সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে বাংলাদেশ সরকার। অবকাঠামোগত সুবিধা, নিরাপত্তাসহ আনুষঙ্গিক সব ধরনের প্রস্তুতি নিয়েছে শরণার্থী ত্রাণ ও পুনর্বাসন কমিশনারের কার্যালয় ও জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা।

জানা যায়, রোহিঙ্গারা রাখাইনে তাদের বাসস্থানে ফিরে যেতে চায় কি না, তা নিয়ে মঙ্গলবার থেকে নির্বাচিত লোকজনের সাক্ষাৎকার নেওয়া শুরু করবে জাতিসংঘের শরণার্থী সংস্থা (ইউএনএইচসিআর)।

এদিকে শরণার্থী ত্রাণ ও পুনর্বাসন কমিশনার মোহাম্মদ আবদুল কালাম জানান, এখন পর্যন্ত মিয়ানমার ১ হাজার ৩৮ পরিবারের ৩ হাজার ৯৯৯ জনকে রাখাইনের অধিবাসী হিসেবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এর মধ্যে ১ হাজার ৩৯০ জন সদস্য বিশিষ্ট ৩৩৭ পরিবারকে পূর্ণাঙ্গভাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। এছাড়া আরো ৭০১টি পরিবারের আংশিক সদস্যের সংখ্যা ২ হাজার ৯ জন রোহিঙ্গা।

রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের জন্য বাংলাদেশ ও ইউএনএইচসিআর যে সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর করেছে তার অন্যতম শর্ত হচ্ছে, বাংলাদেশে আশ্রয় নেয়া কেবলমাত্র সেইসব রোহিঙ্গাদের রাখাইন পাঠানো হবে, যারা স্বেচ্ছায় সেখানে ফিরতে চায়। আর এ কারণেই এসব রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার নিবে ইউএনএইচসিআর।

এর আগে গত ১৫ নভেম্বর আরো একবার রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল। কিন্তু তখন রোহিঙ্গাদের কেউই রাখাইনে ফিরে যেতে না চাওয়ায় ওই উদ্রোগ ভেস্তে যায়। সেবার সরকারের প্রতিনিধিদের বাদ দিয়েই রোহিঙ্গাদের সাক্ষাৎকার নিয়েছিল ইউএনএইচসিআর।