খেলার খবর

মিসবাহ পাকিস্তানের প্রধান কোচ ও নির্বাচক

Advertisements

মিসবাহ-উল-হককে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে পিসিবি। তিনি প্রধান কোচের পাশাপাশি পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করবেন। ওয়াকার ইউনিসকে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে দলের বোলিং কোচ হিসেবে।

সব জল্পনা-কল্পনা শেষ করে সাবেক অধিনায়ক মিসবাহ-উল-হককেই প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ দিয়েছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। শুধু প্রধান কোচই নয়, মিসবাহ একই সঙ্গে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের প্রধান নির্বাচক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। আরেক সাবেক অধিনায়ক ওয়াকার ইউনিস আবারও ফিরছেন জাতীয় দলে। মিসবাহর অধীনে তিনি পাকিস্তান দলের বোলিং কোচ হিসেবে কাজ করবেন।

বিশ্বকাপের পর দক্ষিণ আফ্রিকান কোচ মিকি আর্থারকে সরিয়ে দেওয়া হয়। নতুন কোচ নিয়োগে গঠন করা হয় ৫ সদস্যের একটি প্যানেল। সাবেক অধিনায়ক ও কোচ ইন্তিখাব আলমের নেতৃত্বে এ প্যানেল ছিলেন সাবেক ক্রিকেটার ও ধারাভাষ্যকার বাজিদ খান, পিসিবির সদস্য আসাদ আলী খান, পিসিবির প্রধান নির্বাহী ওয়াসিম খান ও অন্যতম পরিচালক জাকির খান। এই প্যানেল প্রধান কোচ ও নির্বাচক হিসেবে মিসবাহ ও বোলিং কোচ হিসেবে ওয়াকারের নিযুক্তি চূড়ান্ত করেন। পাকিস্তানি দৈনিক দ্য ডন জানিয়েছে, মিসবাহর ব্যাপারে এ প্যানেলের সিদ্ধান্ত ছিল ঐকমত্যের।
প্রধান কোচ হিসেবে নিয়োগ পেয়ে নিজের অনুভূতি জানিয়েছেন মিসবাহ, ‘এটা আমার জন্য সম্মান ও গৌরবের বিষয়। সেই সঙ্গে বিপুল দায়িত্বেরও। আমি সব সময়ই ক্রিকেট নিয়েই থেকেছি। ক্রিকেটই আমার জীবন।’
প্রধান কোচ হিসেবে প্রত্যাশার বিপুল চাপের ব্যাপারটিও মাথায় রাখছেন মিসবাহ, ‘আমি জানি প্রত্যাশার মাত্রা আকাশচুম্বী। তবে আমি দায়িত্ব পালনে পুরোপুরি প্রস্তুত। যদি প্রস্তুতি না থাকত, তাহলে আমি কোনোদিনই এই কঠিন দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করতাম না।’
২০১১ সালে পাকিস্তান ক্রিকেট দলের অধিনায়ক হয়েছিলেন মিসবাহ। তাঁর অধীনে পাকিস্তানের পারফরম্যান্স ছিল দুর্দান্ত। তাঁকে অনেকেই ইমরান খানের পর পাকিস্তান ক্রিকেট ইতিহাসের সেরা অধিনায়কের স্বীকৃতি দেন। ওয়াকারের অধীনে অধিনায়কত্ব করেছেন মিসবাহ। এবার ওয়াকার থাকবেন তাঁর অধীনে। তবে ব্যাপারটি নিয়ে মোটেও মাথা ঘামাচ্ছেন না তিনি। বরং অভিজ্ঞ ওয়কারকে পেয়ে দারুণ খুশি মিসবাহ, ‘আমি ওয়াকার ভাইয়ের মতো একজন অভিজ্ঞ ও কিংবদন্তিকে সঙ্গী হিসেবে পেয়ে খুবই খুশি।’