Advertisements

এক দল লা লিগার শেষ পাঁচ মৌসুমের চারবারই শিরোপা জিতেছে। আরেক দল দুই মৌসুম পর উঠে এসেছে স্পেনের শীর্ষ লিগে। সেই গ্রানাডার কাছে ২-০ গোলের বিব্রতকর হার সঙ্গী করেছে ডিফেন্ডিং চ্যাম্পিয়ন বার্সেলোনা।

গ্রানাডার মাঠে শনিবার রাতে পুরো ম্যাচেই নিজেদের হারিয়ে খুঁজেছে বার্সা। লিওনেল মেসি দ্বিতীয়ার্ধে বদলি হিসেবে নেমেছিলেন। তবে আর্জেন্টাইন তারকাও দলকে বাঁচাতে পারেননি। এই মৌসুমে লিগে নিজেদের প্রথম তিন অ্যাওয়ে ম্যাচেই জিততে ব্যর্থ হলো কাতালান ক্লাবটি।

প্রতিপক্ষের মাঠে ম্যাচের দ্বিতীয় মিনিটেই ডিফেন্ডার জুনিয়র ফিরপোর ভুলে গোল হজম করে বসে বার্সা। ডান দিকে বল পেয়ে রবার্তো সলদাদো পাস বাড়ান পুয়েরতাসকে। তার ক্রসে গোললাইন থেকে হেডে বল জালে পাঠান রামোন আজিজ।

লুইস সুয়ারেজ, আঁতোয়ান গ্রিজমানদের প্রথমার্ধে খুঁজেই পাওয়া যায়নি। প্রথমার্ধের যোগ করা সময়ে সুয়ারেজ একটি সুযোগ পেয়েছিলেন অবশ্য। কিন্তু উরুগুইয়ান স্ট্রাইকারের দুর্বল শট গ্রানাডার রক্ষণ ভেদ করতে পারেনি।

ম্যাচে ফেরার আশায় দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই মেসি ও তরুণ ফরোয়ার্ড আনসু ফাতিকে বদলি হিসেবে নামান বার্সা কোচ আর্নেস্তো ভালভার্দে। এই দুজনও সেভাবে সুযোগ তৈরি করতে পারছিলেন না।

উল্টো ৬৬ মিনিটে দ্বিতীয় গোল খেয়ে বসে বার্সা। ডি বক্সে আজিজের ক্রস ক্লিয়ার করতে গেলে আরতুরো ভিদালের হাতে লাগে বল। ভিএআরের সাহায্য নিয়ে পেনাল্টির বাঁশি বাজান রেফারি। স্পট কিকে মার্ক আন্দ্রে টের স্টেগেনকে পরাস্ত করেন আলভারো ভাদিও।

দুই গোল হজমের পরও লড়ে গেছে বার্সা। মেসি ও ফাতি ভালো সুযোগও তৈরি করেছিলেন। তবে এই দুজনকেই ফিরিয়ে দেন গ্রানাডার গোলরক্ষক। শেষ পর্যন্ত তাই হারের হতাশা নিয়েই মাঠ ছাড়তে হয় মেসিদের।

এই জয়ে পাঁচ ম্যাচে ১০ পয়েন্ট নিয়ে লা লিগার পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে উঠে গেছে গ্রানাডা। ৭ পয়েন্ট নিয়ে বার্সা আছে সাতে। ১৯৯৪-৯৫ মৌসুমের পর লা লিগায় এটাই বার্সার সবচেয়ে বাজে শুরু।

By Abraham

Translate »