আন্তর্জাতিক

কাশ্মীর ইস্যু উঠলোই না মোদি-জিনপিং বৈঠকে

Advertisements

ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির সঙ্গে অবাধ ও মুক্ত আলোচনায় সন্তোষ প্রকাশ করেছেন চীনা প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং। শনিবার ভারত সফর শেষ করার আগে জিনপিং জানিয়েছেন, এই বৈঠকের মাধ্যমে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের অগ্রগতি হবে।

কাশ্মীর নিয়ে গত সপ্তাহে জিনপিং পাকিস্তানের পাশে থাকার ঘোষণা দেওয়ায় নয়া দিল্লি অস্বস্তিতে ছিল। ধারণা করা হচ্ছিল, মোদির সঙ্গে বৈঠকে কাশ্মীর প্রসঙ্গ তুলবেন জিনপিং। তবে সেই ধারণা ভুল প্রমাণিত হয়েছে। বৈঠকে মূলত প্রাধান্য পেয়েছে বাণিজ্য আলোচনা।

চেন্নাই থেকে ৫০ কিলোমিটার দূরে মমল্লপুরমের সমুদ্র সৈকতের কাছে একটি অবকাশযাপন কেন্দ্রে শুক্র ও শনিবার দু’দফা বৈঠক হয়ে মোদি ও জিনপিংয়ের মধ্যে।

শনিবার সংবাদ সম্মেলনে মোদি বলেছেন, ‘উহানের শীর্ষ সম্মেলন ভারত ও চিনের পারস্পরিক বিশ্বাস ও সম্পর্ককে জোরদার করতে বড় ভূমিকা নিয়েছিল। আর চেন্নাইয়ের এই বৈঠকে দু’দেশই পারস্পরিক সম্পর্কে একটি নতুন যুগ শুরু করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।’

প্রেসিডেন্ট শি জিনপিং বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে আমার বন্ধুর মতো কথা হয়েছে। দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক নিয়ে কথা হয়েছে খুবই আন্তরিকভাবে। দু’দেশের সম্পর্কে নতুন যুগ শুরু হল।’

ভারতে পররাষ্ট্র সচিব বিজয় গোখলে বলেছেন, ‘কাশ্মীর ইস্যু উত্থাপন ও আলোচনায় হয় নি। আমাদের বিপরীত পক্ষের (চীন) কাছে এটা একেবারেই স্পষ্ট যে, কাশ্মীর ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়।’

মোদি-জিনপিং বৈঠক প্রসঙ্গে গোখলে বলেন, ‘দুই নেতা খুবই ভাল সময় কাটিয়েছেন। তাদের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক বাণিজ্যে ভারতের ঘাটতি, নতুন বিনিয়োগের ক্ষেত্র খুঁজে বের করা নিয়ে কথা হয়েছে। দুই দেশই মৌলবাদ ও সন্ত্রাসবাদের শিকার। সন্ত্রাসবাদ যাতে দু’দেশের বহুস্তরীয় সংস্কৃতি ও সমাজ নষ্ট করতে না পারে সে জন্য একত্রে কাজ করার সিদ্ধান্ত হয়েছে।’