দেশ জুড়ে

টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু

Advertisements

কক্সবাজারের টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। শুক্রবার সকাল ১০টার দিকে টেকনাফের দমমিয়া জেটিঘাট থেকে তিনটি জাহাজ সেন্টমার্টিনের উদ্দেশে রওনা দেন।

দুপুর সাড়ে ১২টার দিকে দ্বীপে পৌঁছায় জাহাজগুলো। সমুদ্র উত্তাল থাকায় টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌরুটে চলতি বছরের ১৫ মার্চ থেকে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল বন্ধ করে দিয়েছিল প্রশাসন।
টেকনাফের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) মোহাম্মদ রবিউল হাসান জানান, ‘টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-রুটে পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। তিনটি জাহাজে হাজারো পর্যটক দ্বীপে ভ্রমণে যান। জাহাজে অতিরিক্ত কোনও পর্যটক বহন করতে দেওয়া হচ্ছে না। পর্যটকরা যাতে হয়রানির শিকার না হন, সেদিকেও নজর রাখা হচ্ছে।’

জানা যায়,এফবি ফারহান ক্রুজ ৩৮০, দ্যা আটলান্টিক ক্রুজ ৩১১ ও কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন ৩০৩ জন পর্যটক নিয়ে সেন্টমার্টিনদ্বীপে পৌঁছায়। বিকালে জাহাজগুলো পর্যটক নিয়ে টেকনাফের উদ্দেশে রওনা হয়।

বাংলাদেশ অভ্যন্তরীণ নৌপরিবহন কর্তৃপক্ষের (বিআইডব্লিউটিএ) টেকনাফ অঞ্চলের সমন্বয় কর্মকর্তা আমজাদ হোসেন জানান, ‘কেয়ারি ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন, দ্যা আটলান্টিক ক্রুজ ও ফারহান ক্রুজ নামে তিনটি জাহাজ অনুমতি নিয়ে চলাচল শুরু করেছে। ধারণ ক্ষমতার বাইরে কাউকে অতিরিক্ত যাত্রী বহন করতে দেওয়া হবে না।’

এছাড়া দীর্ঘদিন বন্ধ থাকার পর পর্যটকবাহী জাহাজ চলাচল শুরু হওয়ায় খুশি দ্বীপবাসীরা।
মোঃ জুবাইর নামে দ্বীপের বাসিন্ধা বলেন, ‘পর্যটন মৌসুম বন্ধ থাকায় দ্বীপের মানুষের দুর্দিন যাচ্ছিল। দ্বীপে পর্যটক আসা শুরু হওয়ায় এখন আমাদের কষ্ট কমবে।’

সেন্টমার্টিন ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূর আহমদ জানান, সেন্টমার্টিনদ্বীপে পর্যটক আসা শুরু হওয়ায় দ্বীপবাসী ও ব্যবসায়ীদের মধ্যে প্রাণচাঞ্চল্য ফিরে এসেছে।’

পর্যটকবাহী জাহাজ দ্যা আটলান্টিক ক্রুজের টেকনাফের ব্যবস্থাপক আব্দুল আজিজ জানান, টেকনাফ-সেন্টমার্টিন নৌ-পথে জাহাজ চলাচল শুরু হয়েছে। নিয়ম অনুযায়ী তাদের জাহাজ পর্যটকদের বহন করছে।