রাজনীতি

বিএনপি চায় না রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফেরত যাক : হাছান মাহমুদ

Advertisements

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ আজ বলেছেন, বিএনপি চায় না রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে ফেরত যাক। ‘ভাসানচরে রোহিঙ্গাদের স্থানান্তর দেশের নীতিবিরোধী’- বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন মন্তব্যের সমালোচনা করে তিনি একথা বলেন।

সোমবার সচিবালয়ে নিজ দপ্তরে সাংবাদিকদের সঙ্গে মতবিনিময়কালে ড. হাছান মাহমুদ বলেন, ‘রোহিঙ্গাদের সকল প্রকারের সুরক্ষা ও নিরাপত্তা নিশ্চিত করার জন্য ভাসানচরে ভালো ব্যবস্থা করা হয়েছে।
মন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গা জনগণ এখানে থাকলে বিএনপি রাজনীতি করতে পারে। তাদের (বিএনপি) রাজনৈতিক স্বার্থের জন্য তারা চায় না যে রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরিত করা হোক।
আওয়ামী লীগের প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আপনারা সবাই জানেন, কারা রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরিত করার বিরোধিতা করছেন। কিছু চিহ্নিত এনজিও ( বেসরকারি সংস্থা) রোহিঙ্গাদের স্থানান্তরিত করার বিরোধিতা করছে।’
এছাড়া তিনি বলেন, মির্জা ফখরুল ও তার দল চায় না যে রোহিঙ্গারা মিয়ানমারে তাদের স্বদেশে ফিরে যাক। তিনি আরো বলেন, রোহিঙ্গারা তাদের দেশে ফিরে গেলে বিএনপির অসুস্থ রাজনৈতিক স্বার্থ ক্ষুন্ন হবে।
হাছান মাহমুদ বলেন, ‘আমি জানি না যে তারা (বিএনপি) কেন রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে স্থানান্তরিত করার বিরোধিতা করছে। যেখানে রোহিঙ্গারা আরও বেশি সুযোগ-সুবিধা পাবে। ওখানে সেনা ও নৌবাহিনীর সহায়তায় রোহিঙ্গাদের থাকার সুব্যবস্থা করা হয়েছে।’
রেসিডেন্সিয়াল মডেল স্কুল এন্ড কলেজের নবম শ্রেনির ছাত্র নাইমুল আবরার রাহাতের অসহায়ভাবে মৃত্যু সম্পর্কে এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ওই শিক্ষার্থীর মৃত্যুর পরেও আয়োজকরা তাদের কর্মসূচি চালিয়ে যাওয়াটা অত্যন্ত দুঃখজনক।
তিনি জানান, আজ বিষয়টি মন্ত্রিপরিষদের বৈঠকে আলোচনা হয়েছে, যদিও তা এজেন্ডায় অন্তর্ভুক্ত ছিল না।
তিনি বলেন, বৈঠকে আবরারের মৃত্যুর পরও কেন আয়োজকরা ওই অনুষ্ঠান অব্যাহত রাখে, কেন ময়নাতদন্ত ও অন্যান্য আইনী প্রক্রিয়া ছাড়াই তাকে দাফন করা হয়, সে ব্যাপারে আলোচনা হয়েছে। এছাড়াও কারা এই দুর্ঘটনার জন্য দায়ী এবং ঘটনাস্থলের কাছেই অনেক ক্লিনিক থাকা সত্ত্বেও কেন তাকে দূরের একটি হাসপাতালে নেয়া হয় সে ব্যাপারেও আলোচনা হয়েছে।
মন্ত্রী আরো বলেন, ঘটনাটি তদন্তাধীন থাকায় তিনি কোন মন্তব্য করেননি।
সম্প্রতি স্কুলের প্রাঙ্গণে প্রথম আলোর কিশোরদের জন্য মাসিক পত্রিকা কিশোর আলো আয়োজিত এক অনুষ্ঠান চলাকালে আবরার বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়।
হাছান ঢাকা সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র ও বিএনপি নেতা সাদেক হোসেন খোকার মৃত্যুতে গভীর শোক প্রকাশ করেন।
তিনি খোকার রুহের মাগফিরাত কামনা করেন এবং তার শোক-সন্তপ্ত পরিবারের সদস্যদের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।
পরে, তথ্যমন্ত্রীর সঙ্গে তার মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন (ডিইউজে)’র নেতৃবৃন্দ সৌজন্য সাক্ষাত করেন।
বৈঠকে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন তথ্য প্রতিমন্ত্রী ড. মুরাদ হাসান, তথ্য সচিব আবুল মালেক, প্রধান তথ্য কর্মকর্তা সুরথ কুমার সরকার, প্রেস ইনিস্টিটিউ অব বাংলাদেশ (পিআইবি)’র মহাপরিচালক জাফর ওয়াজেদ, বাংলাদেশ ফেডারেল ইউনিয়ন অব জার্নালিস্ট (বিএফইউজে)’র সভাপতি মোল্লা জালাল, মহাসচিব শাবান মাহমুদ, ডিইউজে’র সভাপতি আবু জাফর সুর্য ও সাধারণ সম্পাদক সোহেল হায়দার চৌধুরি।