Advertisements

ঠিক এক যুগ আগে ২০০৭ সালের ১১ নভেম্বরে সিডরের আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়েছিল উপকূল। প্রলয়ঙ্করী ওই ঘূর্ণিঝড়ে প্রাণ যায় তিন হাজারের বেশি মানুষের। ১৯৭০ সালের ১১ নভেম্বর ভোলায় ঘূর্ণিঝড়ে প্রাণ গিয়েছিল ১০ লাখ মানুষের। আবার এসেছে নভেম্বর, আবার আসছে ঘূর্ণিঝড়। ধ্বংসের হুমকি নিয়ে বঙ্গোপসাগর থেকে উপকূলের দিকে ধেয়ে আসছে ‘বুলবুল’। ঘণ্টায় ১২০ থেকে ১৬৫ কিলোমিটারের ঝড়ো হাওয়ার সঙ্গে পাঁচ থেকে সাত ফুট উচ্চতায় জলোচ্ছ্বাস সৃষ্টি করে আজ শনিবার রাতে ঘূর্ণিঝড়টি উপকূলীয় অঞ্চলে আঘাত হানতে পারে।

এদিকে বুলবুলের কারণে সারাদেশে আজ শনিবার অনুষ্ঠেয় জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) ও জুনিয়র দাখিল সার্টিফিকেট (জেডিসি) পরীক্ষা স্থগিত করা হয়েছে। ঢাকা মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা বোর্ডের চেয়ারম্যান মু. জিয়াউল হক গতকাল রাতে জানান, স্থগিত হওয়া জেএসসি পরীক্ষাটি আগামী ১২ নভেম্বর ও জেডিসি পরীক্ষা ১৪ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হবে। জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের আজকের সব পরীক্ষাও স্থগিত করা হয়েছে।

ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে গতকাল শুক্রবার ঢাকাসহ সারাদেশে সূর্যের মুখ দেখা যায়নি। দুপুর থেকে শুরু হয় ঝিরিঝিরি বৃষ্টি। উপকূলীয় এলাকায় টানা বর্ষণে জনজীবন স্থবির হয়ে পড়ে। ক্ষয়ক্ষতি থেকে রক্ষায় উপকূলের বাসিন্দাদের আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেওয়া হচ্ছে। উপকূলীয় এলাকার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের ছুটি বাতিল করা হয়েছে। মোংলা ও পায়রায় ৭ নম্বর এবং চট্টগ্রাম সমুদ্রবন্দরে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত জারি করেছে আবহাওয়া অধিদপ্তর। কক্সবাজার বন্দরকে ৪ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে। সব বন্দরের কার্যক্রম বন্ধ রয়েছে। সারাদেশে নৌ চলাচল বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে।

By Abraham

Translate »