রাজনীতি শিক্ষা ও শিক্ষাঙ্গন

দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতি রুখতে ছাত্রদের ভূমিকা চান সাবেক ছাত্রনেতারা

Advertisements

দুর্বৃত্তায়িত রাজনীতির বিপরীতে দাঁড়িয়ে ছাত্রদের অগ্রণী ভূমিকা দেখতে চাইছেন ডাকসুর সাবেক নেতারা।

ছাত্র রাজনীতি নিয়ে সোমবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক আলোচনা সভায় সাবেক এই ছাত্রনেতারা তাদের প্রত্যাশার কথা জানান, যাদের সবাই বর্তমানে বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃত্বে রয়েছেন।

সুশাসনের জন্য নাগরিক-সুজনের উদ্যোগে ‘বাংলাদেশের ছাত্র রাজনীতি ও প্রাসঙ্গিক ভাবনা’ শীর্ষক এই আলোচনা সভায় মূল প্রবন্ধ পড়ে শোনান নাগরিক সংগঠনটির নেতা দীলিপ সরকার।

এতে লেজুড়বৃত্তি ছাত্ররাজনীতি ও শিক্ষক রাজনীতি নিষিদ্ধ করা, টেন্ডারবাজি-চাঁদাবাজি, ভর্তি বাণিজ্য-সিট বাণিজ্য কঠোরভাবে দমন, রাজনৈতিক বিবেচনায় উপাচার্যসহ বিভিন্ন পদে নিয়োগের সংস্কৃতি পরিবর্তন, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে সব ছাত্র সংগঠনের সহাবস্থান নিশ্চিত করাসহ ১০ দফা করণীয় তুলে ধরা হয়।

এই আলোচনায় উপস্থিতদের মধ্যে ডাকসুর জ্যেষ্ঠতম সাবেক ভিপি ও বর্তমানে ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, জাতীয় রাজনীতি কলুষিত হলে তা কলুষমুক্ত করার সুযোগ ছাত্রদেরই থাকে।

গত শতকের ষাটের দশকে নিজের ছাত্র আন্দোলনের সময়ের উদাহরণ দিয়ে তিনি বলেন, “এনএসএফ বা মোনায়েম খানের বা আইয়ুব খানের সেই কলুষিত রাজনীতিকেই কিন্তু আমাদের ছাত্র রাজনীতি পরাজিত করেছে, এরশাদের কলুষিত রাজনীতিকে আমরা ছাত্র আন্দোলন দিয়ে পরাজিত করেছি।

“জাতীয় রাজনীতি কলুষিত, সেজন্য ছাত্র আন্দোলনও দুর্বৃত্তায়িত হবে- এই যুক্তি ধোপে টেকে না। তারুণ্যকে তার প্রতিবাদের জায়গা থেকে, তার প্রতিরোধের জায়গা থেকে সংগঠিত হয়ে এগিয়ে আসতে হবে।”

তবে তার সঙ্গে ভিন্নমত জানান ১৯৭০-৭১ সালে ডাকসুর ভিপি ও বর্তমানে জেএসডির সভাপতি আ স ম আবদুর রব।

তিনি বলেন, “জাতীয় রাজনীতি যদি সঠিকভাবে না থাকে, ছাত্র রাজনীতিও থাকবে না।”

Leave a Reply