Advertisements

গর্ভাবস্থায় শরীরে অতিরিক্ত ভিটামিন এবং খনিজ প্রয়োজন হয়। কারণ এ সময় শরীরে প্রয়োজনীয় পুষ্টির অভাব থাকলে তা গর্ভস্থ শিশুর বিকাশের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। স্বাস্থ্যকর এবং পুষ্টিকর খাবার খেলে মা এবং শিশুর স্বাস্থ্য সুরক্ষা হয়।

ছোলা এমন একটি স্বাস্থ্যকর এবং পুষ্টিকর খাবার, যা গর্ভাবস্থায় দারুণ উপকারে আসে। এতে প্রোটিন, ফাইবার, ক্যালসিয়াম, আয়রন, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, কার্বোহাইড্রেট এবং ফলিক থাকায় এটি গর্ভবতী মায়েদের স্বাস্থ্য সুরক্ষা করে।

গর্ভবস্থায় ছোলা খেলে যেসব উপকারিতা পাওয়া যায়-

১. গর্ভাবস্থায় অনেক নারীই রক্তশূন্যতায় ভোগেন। এ সময় ছোলা খেলে রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা ঠিক থাকে। একই সঙ্গে অপরিণত শিশু জন্মের ঝুঁকিও কমে।

২. গর্ভকালীন সময়ে অনেকের রক্তে শর্করার পরিমাণ বেড়ে যায়। রক্তে শর্করার পরিমাণ ঠিক না থাকলে মা ও শিশুর স্বাস্থ্যে খারাপ প্রভাব পড়ে। ছোলায় থাকা ফাইবার রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে সহায়তা করে।

৩. ফলিক অ্যাসিডের ভালো উৎস হওয়ায় গর্ভাবস্থায় ছোলা খেলে অনাগত শিশুর বৃদ্ধি ভালো হয়।

৪. গর্ভাবস্থায় কোষ্ঠকাঠিন্য একটি সাধারণ সমস্যা। ছোলা ফাইবারের অত্যন্ত ভালো উৎস হওয়ায় এটি গর্ভবতী নারীদের কোষ্ঠকাঠিন্য রোধে সহায়তা করে।

৫. ছোলায় থাকা প্রোটিন গর্ভস্থ শিশুর বৃদ্ধি ও বিকাশের জন্য প্রয়োজনীয়। এটি দেহের টিস্যু এবং পেশি বজায় রাখতে প্রধান ভূমিকা পালন করে।

গর্ভাবস্থায় ছোলা খেলে অনেকের পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াও দেখা দেয়। বিশেষজ্ঞদের মতে, গর্ভাবস্থায় কারও পেটের সমস্যা কিংবা অ্যালার্জি দেখা দিলে ছোলা খাওয়া থেকে বিরত থাকা উচিত।

কীভাবে খাবেন

ভাজা নয়, গর্ভাবস্থায় ছোলা সিদ্ধ, রান্না, স্যুপে দিয়ে সিদ্ধ ছোলা কিংবা শাকসবজির সঙ্গে সালাদে মিশিয়েও খেতে পারেন। সূত্র : বোল্ড স্কাই

 

By Abraham

Translate »