Advertisements

ভারতের সঙ্গে বাংলাদেশের ‘নিবিড় সম্পর্কের’ কথা মনে করিয়ে দিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন বলেছেন, জনগণ চায়, প্রতিবেশী দেশটি এমন কিছু করবে না, যাতে আতঙ্ক তৈরি হয়।

আসামের পর জাতীয়ভাবে পুরো ভারতে নাগরিকপঞ্জি করার উদ্যোগ নিয়ে আলোচনার মধ্যে শুক্রবার ঢাকায় এক অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন বক্তব্য আসে।

ভারতীয় হাই কমিশনার রীভা গাঙ্গুলী দাসের উপস্থিতিতে ওই অনুষ্ঠানে তিনি আশা প্রকাশ করেন, পরস্পর বন্ধুত্বের মাধ্যমে ভারত ও বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। দুই দেশের জনগণের প্রত্যাশা পূরণ হবে।

“আমরা আশাবাদী, এই সম্পর্ক ক্রমান্বয়ে নিবিড় থেকে নিবিড়তর হবে। সেই সাথে আমাদের দেশের জনগণের প্রত্যাশা যে, বন্ধুপ্রতীম ভারত এমন কিছু করবে না, যাতে উভয় দেশের জনগণের মধ্যে দুশ্চিন্তা বা আতঙ্কের পরিবেশ সৃষ্টি হয়।”

নানা বিতর্কের মধ্যে গত অগাস্টে আসামের চূড়ান্ত নাগরিকপঞ্জি প্রকাশ হলে দেখা যায়, রাজ্যটির বাসিন্দা ১৯ লাখ মানুষের নাম সেখানে স্থান পায়নি। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ শুরুর আগে ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চের আগে আসামে যারা আবাস গেঁড়েছেন, তারাই তালিকায় রয়েছেন।

নাগরিকপঞ্জিতে বাদ পড়াদের ‘অবৈধ বাংলাদেশি’ হিসেবে চিহ্নিত করে ভারত থেকে বের করে দেওয়া হতে পারে বলে আলোচনা রয়েছে ভারতীয় গণমাধ্যমে। বিষয়টি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে কথা বললে তিনি এ বিষয়ে বাংলাদেশের উদ্বিগ্ন হওয়ার কারণ নেই বলে আস্বস্ত করেন।

By Abraham

Translate »