Advertisements

দুদকের চলমান দুর্নীতিবিরোধী অভিযান আর এগোবে না, বন্ধ হয়ে যাবে এ ধরনের চিন্তা যারা করছেন তারা বোকার স্বর্গে বসবাস করছেন। দুদকের তালিকায় যাদের নাম রয়েছে এবং তাদের সম্পর্কে যেসব তথ্য পাওয়া গেছে, তাতে অভিযান বন্ধ হওয়ার কোনো সুযোগ নেই। বললেন দুদক চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ।

আজ রোববার আন্তর্জাতিক দুর্নীতিবিরোধী দিবস-২০১৯  উপলক্ষে মিট দ্য প্রেস অনুষ্ঠানে তিনি এসব কথা বলেন। দুদক চেয়ারম্যান বলেন, এরই মধ্যে যাদের নাম এসেছে, তারা দুদকের জাল থেকে বের হতে পারবে না। এদের মধ্যে রুই-কাতলা পর্যায়ের অনেকে আছে। তাদের বিষয়ে তথ্য চেয়ে সিঙ্গাপুরসহ একাধিক দেশে চিঠিও পাঠানো হয়েছে। অনুসন্ধান তদন্তে দুদক শক্ত অবস্থানে আছে। তিনি বলেন, ক্যাসিনোকাণ্ডে জড়িত অনেককে রিমান্ডে নেয়া হচ্ছে। তাদের কাছ থেকে অনেকের নাম পাওয়া যাচ্ছে।

যাদের নাম বেশি বেশি সামনে আসছে, তাদের আগে ধরা হচ্ছে। সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, দুর্নীতির লাগাম টেনে ধরতে হবে।

এ কাজটি করতে পারলেই দেশে টেকসই উন্নয়ন নিশ্চিত করা সম্ভব হবে। বেসিক ব্যাংক কেলেঙ্কারি বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে দুদক চেয়ারম্যান বলেন, গণমাধ্যমে এ নিয়ে যে খবর প্রকাশ হয়েছে, তার ভিত্তিতে ব্যাংকটিতে নিয়োগ নিয়ে কম্পট্রোলার অ্যান্ড অডিটর জেনারেলের (সিএজি) নিরীক্ষা প্রতিবেদন চাওয়া হবে। প্রায় ১২শ’ কর্মকর্তা-কর্মচারীর নিয়োগ নিয়ে নজিরবিহীন অনিয়ম-দুর্নীতির ঘটনা ঘটেছে। ইকবাল মাহমুদ বলেন, আত্মসাৎকৃত অর্থ সর্বশেষ কোন চ্যানেলে কার কাছে গেছে, তা এখনও বের করা সম্ভব হয়নি। এ কারণে চার্জশিট দিতে দেরি হচ্ছে। চার্জশিটে বাচ্চুর নাম আসবে কি না জানতে চাইলে তিনি বলেন, এটি তদন্তের বিষয়। তদন্তে তার বিরুদ্ধে প্রমাণ পাওয়া গেলে তদন্ত কর্মকর্তা সে হিসাব করেই চার্জশিট তৈরি করবেন।

By Abraham

Translate »