Advertisements

এবারের বঙ্গবন্ধু বিপিএল তাদের কাছে ক্রিকেটে ফেরার মঞ্চ। মাশরাফি বিন মুর্তজা ফিরলেন পাঁচ মাস পর। তামিম ইকবাল ক্রিকেটের বাইরে ছিলেন দুই মাস। প্রত্যাবর্তনের ম্যাচটা ভালো যায়নি দুজনের কারোরই। হেরেছে তাদের দল ঢাকা প্লাটুন। তবে লম্বা সময় বাইরে থাকায় খানিকটা অস্বস্তি থাকা অস্বাভাবিক মনে করছেন না মাশরাফি।

বিপিএলের দ্বিতীয় দিনে বৃহস্পতিবার রাজশাহী রয়্যালসের বিপক্ষে ৯ উইকেটে হারে ঢাকা। তামিম আউট হয়ে যান ৫ রানে। ব্যাটিংয়ে ১০ বলে ১৮ রানের ইনিংস খেললেও বল হাতে মাশরাফি ছিলেন উইকেটশূন্য।

বিশ্বকাপের পর থেকে লম্বা সময় মাশরাফি লড়াই করেছেন চোটের সঙ্গে। বিপিএলেও নেমেছেন পিঠের ব্যথা সঙ্গী করে। বেশ কয়েকদিন পর মাঠে নেমে শারীরিক ও মানসিকভাবে মানিয়ে নেওয়া কিছুটা সময়সাপেক্ষ বলে মনে করেন বিপিএলের সবচেয়ে সফল অধিনায়ক।

“অনেক সময় মানিয়ে নিতে একটু সময় লাগে। যদিও এটা অজুহাতের মতো শোনায়…অনেক দিন পরে নেমেছি তাই একটু জড়তা যে নেই, তা নয়। ক্রিকেটাররা অনেকদিন বাইরে থাকলে এই সমস্যাগুলো হয়। হয়তো ৩-৪ ম্যাচ গেলে এটা ঠিক হয়ে যাবে।”

“পিঠে একটু চোট ছিল। অনেক দিন খেলার বাইরে আছি যেহেতু, ছোট খাটো চোট থাকার কথা ছিল না। কিন্তু আছে। (অনেকদিন পর) শুরু করলে টুকটাক সমস্যা থাকেই, আমার কাছে মনে হয় এগুলো বড় কিছু না। কারণ আগেও এগুলো পার করে এসেছি। আশা করি ঠিক হয়ে যাবে।”

তামিমের চোট-সমস্যা ছিল না। ক্রিকেট থেকে দূরে ছিলেন নানা কারণে। দেশের মাটিতে আফগানিস্তানের বিপক্ষে টেস্ট ও ত্রিদেশেীয় টি-টোয়েন্টি সিরিজ থেকে নিয়েছিলেন বিরতি। এরপর অক্টোবরে জাতীয় লিগের একটি ম্যাচ খেললেও ভারত সফর থেকে নিজেকে সরিয়ে নেন পারিবারিক কারণে। গত বিপিএলের ফাইনালে ১৪৫ রানের অসাধারণ ইনিংস খেলা ব্যাটসম্যানের এবার শুরুটা হলো হতাশার।

তবে তামিমের ওপর আস্থা প্রবল বলেই দুর্ভাবনা নেই মাশরাফির।

“আমার মনে হয় না তামিমকে নিয়ে বেশি চিন্তা করার কিছু আছে। গতবারও তামিম বেশিরভাগ ম্যাচে এমন পারফরম্যান্সের ভেতর দিয়ে গিয়েছিল, কিন্তু শেষ পর্যন্ত ফাইনালে ম্যাচজয়ী ইনিংস ওরই ছিল। তামিম এটা বারবারই প্রমাণ করে এসেছে।”

শুক্রবার নিজেদের দ্বিতীয় ম্যাচে ঢাকা খেলবে কুমিল্লা ওয়ারিয়র্সের বিপক্ষে।

By Abraham

Translate »