Advertisements

পেশাদার প্রশিক্ষিত সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তুলতে সরকার কাজ করে যাচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। 

রোববার সকালে ন্যাশনাল ডিফেন্স কোর্স ২০১৯ এবং আর্মড ফোর্সেস ওয়ার কোর্স ২০১৯ এর গ্রাজুয়েশন অনুষ্ঠানে তিনি একথা বলেন।

জাতির পিতা চমৎকার সশস্ত্র বাহিনী গড়ে তুলতে চেয়েছিলেন মন্তব্য করে শেখ হাসিনা বলেন, “তিনি আমাদের প্রতিরক্ষা নীতিমালা দিয়ে গিয়েছিলেন ১৯৭৪ সালে। তারই আলোকে আমরা ফোর্সেস গোল ২০৩০ প্রণয়ন করে এগিয়ে যাচ্ছি। আমাদের সশস্ত্র বাহিনীকে আরও শক্তিশালী করতে, যুগোপযোগী করতে সেটা হচ্ছে সব থেকে গুরুত্বপূর্ণ।

“সেনাবাহিনীর জন্য নতুন আধুনিক অস্ত্র-শস্ত্র জোগাড় থেকে শুরু করে ট্রেনিংয়ের ব্যবস্থা করা, আমরা বিভিন্ন  জায়গায় সেনানিবাসও গড়ে তুলেছি নতুন কয়েকটি। যেটা দেশের জন্য যখন প্রয়োজন আমরা সে ব্যাপারে যথেষ্ট সচেতন এবং সেই পদক্ষেপ নিচ্ছি। কারণ আমরা চাই একটা পেশাদার প্রশিক্ষিত সশস্ত্র বাহিনী প্রতিষ্ঠা করতে।”

পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে যেন বাংলাদেশের সশস্ত্র বাহিনীর সদস্যরা চলতে পারেন, তা নিশ্চিত করতে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন উদ্যোগের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “শান্তিরক্ষা মিশনে গিয়ে আধুনিক যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে যেন আমাদের সদস্যরা চলতে পারেন, যুদ্ধ সরঞ্জামের সঙ্গে যেন তাদের পরিচিতি থাকে এবং তারা যেন যে কোনো ক্ষেত্রে ভূমিকা রাখতে দ্বিধাগ্রস্ত না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রেখেই ট্রেনিং এবং সমরাস্ত্র সম্পর্কে আমরা যথেষ্ট সচেতন এবং যথাযথ সম্ভব আমাদের সীমিত সম্পদ দিয়ে আমরা সেটা জোগাড় করে দিচ্ছি এবং তৈরি করছি।”

প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও দুর্ঘটনায় জনগণের পাশে দাঁড়িয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখায় সশস্ত্র বাহিনীর প্রশংসার পাশাপাশি তাদের ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “এদেশের জনগণের সেবা করা আমাদের সকলেরই দায়িত্ব। কারণ জনগণের অর্থেই আমাদের বেতন-ভাতা, যা কিছু সবই সাধারণ মানুষের অর্থে। কাজেই তাদের জীবনটাকে সুন্দর করা- সেটাই আমাদের লক্ষ্য।”

দেশের উন্নয়নে সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ ও ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা তুলে ধরে সরকারপ্রধান বলেন, বিশ্বজুড়ে জাতীয় নিরাপত্তা বহুগুণ বৃদ্ধি পাচ্ছে; যুগের সাথে সাথে সবকিছুর একটা পরিবর্তন হচ্ছে। তাছাড়া এখন প্রযুক্তিনির্ভর বিশ্ব এগিয়ে যাচ্ছে।

“আমাদের দেশটাকেও সেভাবে আমরা গড়ে তুলতে চাই।”

By Abraham

Translate »