Advertisements

স্মার্টফোনের বাজারে গত পাঁচ বছরে হুয়াওয়ে অনেক দূর এগিয়েছে। ২০১৫ সালে চীনা প্রতিষ্ঠানটি ১০৪ মিলিয়ন ইউনিট স্মার্টফোন সরবরাহ করে ৫.৫ শতাংশ মার্কেট শেয়ার নিয়ে বিশ্ববাজারে তৃতীয় অবস্থানে ছিল।

এরপর ২০১৬ সালে হুয়াওয়ে উচ্চাভিলাষী লক্ষ্য ঘোষণা করেছিল যে, ২০২১ সালের মধ্যে বিশ্বের শীর্ষ স্মার্টফোন প্রস্তুতকারক হওয়ার। স্ট্রাটেজি অ্যানালিটিক্সের সাম্প্রতিক একটি বিশ্লেষণধর্মী প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, হুয়াওয়ে সেই লক্ষ্যটিকে ছুঁয়ে ফেলতে পারে।

কোরিয়া হেরাল্ডের সাম্প্রতিক প্রতিবেদনে ধারণা করা হয়েছে, বৈশ্বিক স্মার্টফোন বাজারে হুয়াওয়ে এ বছরটি শেষ করবে আনুমানিক ১৭.৭ শতাংশ মার্কেট শেয়ার দখল করে। ২০১৯ সাল শেষে মোট ২৫১ মিলিয়ন ইউনিট স্মার্টফোন সরবরাহের মাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটি দ্বিতীয় স্থানে থাকবে।

স্ট্রাটেজি অ্যানালিটিক্সের বাজার বিশেষজ্ঞদের মতে, মার্কেট দখলে বছর শেষে স্যামসাংয়ের তুলনায় মাত্র ৩.৬ শতাংশ পয়েন্টের ব্যবধানে পিছিয়ে থাকবে হুয়াওয়ে। আনুমানিক ৩২৩ মিলিয়ন ইউনিট স্মার্টফোন সরবরাহ করে বিশ্ববাজারের ২১.৩ শতাংশ দখল থাকবে স্যামসাংয়ের।

তুলনা করলে দেখা যায়, ২০১৮ সাল হুয়াওয়ে শেষ করেছিল ১৪.৪ শতাংশ মার্কেট দখল করে এবং স্যামসাং শেষ করেছিল ২০.৩ শতাংশ দখল করে। হুয়াওয়ের চেয়ে ৫.৬ শতাংশ ব্যবধানে এগিয়ে ছিল স্যামসাং।

স্যামসাং যদিও প্রতি বছর আরো বেশি সংখ্যক স্মার্টফোন বিক্রি অব্যাহত রেখেছে কিন্তু হুয়াওয়ে স্যামসাংকে টপকে যাওয়ার জন্য আরো কাছাকাছি চলে এসেছে।

মার্কিন সরকারের নিষেধাজ্ঞার জন্য হুয়াওয়ে এ বছর বেশ বড় একটি ধাক্কা খেয়েছে। তবে হতাশ হয়ে পড়েনি। প্রতিষ্ঠানটি নতুন ফ্ল্যাগশিপ মেট ৩০ প্রো’র মাধ্যমে চীনের বাজারে সুদৃঢ় অবস্থান তৈরি করেছে। মার্কিন নিষেধাজ্ঞায় মেট ৩০ প্রো ফোনে ‍গুগলের সেবাগুলো ব্যবহার করতে পারেনি হুয়াওয়ে, যার ফলে পশ্চিমা বাজারগুলোতে বিশেষ করে ইউরোপে ফোনটির বিক্রি মারাত্মক ব্যাহত হয়েছে। ফলে চীনের বাজারই হুয়াওয়ের মূল ভরসা।

অন্যদিকে স্মার্টফোনের বাজারে তৃতীয় অবস্থানে থাকবে অ্যাপল। মোট ১৯৩ মিলিয়ন ইউনিট আইফোন সরবরাহের মাধ্যমে আনুমানিক ১৩.৬ শতাংশ মার্কেট দখল থাকবে অ্যাপলের।

তথ্যসূত্র : জিএসএম অ্যারেনা

By Abraham

Translate »