Advertisements

ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার কর্তৃক যে নাগরিকত্ব সংশোধন আইন করা হয়েছে তা পশ্চিমবঙ্গে কার্যকর করা হবে না বলে ঘোষণা দিয়েছেন রাজ্যের মূখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জী। বিষয়টি নিয়ে এক ধরণের আইনি জটিলতা সৃষ্টি হয়েছে।

ভারতের সংবিধানে বলা হয়েছে, কেন্দ্রীয় সরকার কোনো আইন করলে রাজ্য সরকার সেই আইন মানতে বাধ্য। এক্ষেত্রে আইন না মানা রাজ্যে কার্যত ভারতীয় সংবিধান অকার্যকর। এমন পরিস্থিতি সংবিধানের ৩৫৬ ধারা বলে রাষ্ট্রপতির শাসন জারি করা হতে পারে।

এ বিষয়ে পশ্চিমবঙ্গে সাবেক অ্যাডভোকেট জেনারেল, আইনজীবী জয়ন্ত মিত্র বলেন, ‘সংবিধান অনুযায়ী, নাগরিকত্ব কেন্দ্রীয় তালিকাভুক্ত বিষয়। সে বিষয়ে কেন্দ্র যদি কোনও আইন আনে তবে রাজ্যকে তা মানতেই হবে।’

কলকাতা হাইকোর্টের আইনজীবী দীপন সরকার বলেন,‘সংবিধানের ২৫৬ নম্বর অনুচ্ছেদে স্পষ্ট করে দেয়া রয়েছে, সংসদে প্রণীত আইন মেনে চলতে হবে রাজ্যকে। এমনকি রাজ্যকে সেই আইন মানার সরাসরি নির্দেশও দিতে পারে কেন্দ্র।’

প্রেসিডেন্সি বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক অধ্যক্ষ অমল মুখোপাধ্যায় বলেন,‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সরকারিভাবে বিজ্ঞাপন দিয়ে ঘোষণা করছেন যে তিনি সিএএ মানবেন না। এটা ২৫৬ ধারার বিরুদ্ধে।’

অমল মুখোপাধ্যায় মনে করেন, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের এই সিদ্ধান্ত সংবিধানবিরোধী। সংবিধানে খুব পরিষ্কারভাবে উল্লেখ করা রয়েছে, ২৫৬ ধারা অনুযায়ী যদি কেন্দ্রের নির্দেশ না মেনে নেয় রাজ্য এবং ওই কেন্দ্রীয় আইন না মানে, তাহলে ধরে নেওয়া হবে ওই রাজ্যে সাংবিধানিক অচলাবস্থা চলছে। সেক্ষেত্রে রাজ্যে সাংবিধানিক অচলাবস্থার কারণে কেন্দ্র সংবিধানের ৩৫৬ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী রাষ্ট্রপতির শাসন ঘোষণা করতে পারে।’

সূত্র: আনন্দবাজার পত্রিকা।

By Abraham

Translate »