Advertisements

আগামীতে বিএনপি ক্ষমতায় গেলে মহান মুক্তিযুদ্ধের বীর শহীদদের তালিকা প্রকাশ করবে বলে জানিয়েছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।

শুক্রবার বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশন মিলনায়তনে নাগরিক অধিকার ফোরামের উদ্যোগে ‘মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ও আজকের বাংলাদেশের বাস্তবতা’ শীর্ষক আলোচনা সভায় তিনি এ কথা জানান।

আমীর খসরু বলেন, সরকার যদি এই তালিকা না করে বিএনপি সেই তালিকা করবে। বিএনপি যেদিন ক্ষমতায় আসবে সেদিন শহীদদের তালিকা প্রণয়ন করবে। শুধু তাই নয়, শহীদদের তালিকা প্রণয়ন করে প্রত্যেকটি এলাকায় স্তম্ভের মধ্যে তাদের নাম প্রকাশ করবে।

তিনি বলেন, আওয়ামী লীগ বিভিন্ন তালিকা প্রকাশ করে রাজনীতি করছে। তাতে তাদের কোনো সমস্যা নেই। কিন্তু তারা মূল তালিকায় হাত দিচ্ছে না। যারা বাংলাদেশের জন্য নিজেদের প্রাণ ত্যাগ করেছেন, যাদের প্রাণের বিনিময়ে স্বাধীনতা এসেছে- তাদের তালিকা কোথায়? শহীদের তালিকা কোথায়? এই তালিকা প্রস্তত করার পেছনে সরকারের এতো ইতস্ততার কারণটা কী?

খালেদা জিয়ার মুক্তি প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল জানিয়েছে- বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্বাস্থ্যের ক্ষেত্রে চিকিৎসার জন্য ‘ম্যান্ডেলা রুলস’ প্রয়োগ করতে হবে। সেখানে আরও বলা হয়েছে- খালেদা জিয়া ন্যায়বিচার পাবেন কি-না তা নিয়ে বাংলাদেশের মানুষ সন্দিহান। একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে এ রকম বক্তব্য আসায় বাংলাদেশের রাজনৈতিক, গণতান্ত্রিক, মানবাধিকার, আইনের শাসন ভীষণভাবে প্রশ্নবিদ্ধ হয়েছে।

এ সময়ে তিনি আওয়ামী লীগের কাউন্সিলকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, ‘তাদের কাউন্সিলে তারা (আওয়ামী লীগ) গণতন্ত্র কীভাবে ফিরিয়ে দেবে, বাংলাদেশের জনগণকে কীভাবে গণতন্ত্র ফিরিয়ে দেবে, বাংলাদেশের মানুষের ভোটাধিকার কীভাবে ফিরিয়ে দেবে, বাংলাদেশের মানুষের কেড়ে নেওয়া মৌলিক অধিকার কীভাবে ফিরিয়ে দেবে তার ঘোষণা দেবে বলেই প্রত্যাশা করছি।’

আলোচনা সভায় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল বলেন, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী পাকিস্তানের এজেন্ট কি-না, পাকিস্তানপ্রেমী কি-না সেটা প্রধানমন্ত্রীকে খতিয়ে দেখতে হবে।

তিনি বলেন, মুক্তিযুদ্ধবিষয়ক মন্ত্রী বলেছেন পাকিস্তানের করা তালিকা প্রকাশ করা হয়েছে। আর প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, পাকিরা যেখানে থাকবে সেখানে ষড়যন্ত্র করবে। তাহলে তো পাকিস্তানের বড় এজেন্ট মুক্তিযুদ্ধমন্ত্রী।

আয়োজক সংগঠনের উপদেষ্টা কাজী মনিরুজ্জামান মনিরের সভাপতিত্বে বিএনপির কেন্দ্রীয় নেতা আবু নাসের মোহাম্মদ রহমাতুল্লাহ, বিলকিস ইসলাম প্রমুখ বক্তব্য দেন।

By Abraham

Translate »