Advertisements

ইতালিয়ান সুপার কাপের ফাইনালে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর জুভেন্টাসকে ৩-১ গোলে হারিয়েছে লাৎসিও। এ নিয়ে এই মৌসুমে লাৎসিওর কাছেই দুটি ম্যাচ হারল ইতালির চ্যাম্পিয়নরা।

এ মৌসুমে রোনালদোরা ম্যাচ হেরেছেন মাত্র দুটি। দুটিই লাৎসিওর বিপক্ষে!

গত রাতে এই লাৎসিওর কাছে তো একটা শিরোপাই হাতছাড়া হয়ে গেল জুভেন্টাসের। ইতালিয়ানের সুপার কাপের ফাইনালে রোমের নীল দলটার কাছে ৩-১ গোলে হেরেছে ইতালির চ্যাম্পিয়নরা।

শুরুতে এগিয়ে যায় লাৎসিও। ম্যাচের ষোলো মিনিটে সার্বিয়ান মিডফিল্ডার সার্গেহ মিলিঙ্কোভিচ-সাভিচের কাছ থেকে বল পেয়ে দশ গজ দূর থেকে বল জালে পাঠান স্প্যানিশ মিডফিল্ডার লুইস আলবার্তো। এই আলবার্তো বছরখানেক খেলেছিলেন লিভারপুলের হয়ে। তখন কিছুই করতে পারেননি। লাৎসিওতে গিয়েই নিজেকে গত কয়েক মৌসুম ধরেই যেন ফিরে পেয়েছেন এই তারকা।

প্রথমার্ধের শেষ দিকে আর্জেন্টাইন স্ট্রাইকার পাওলো দিবালার গোলে সমতা ফেরায় জুভেন্টাস। ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর শট লাৎসিওর গোলরক্ষক টমাস স্ট্রাকোশা ঠিকমতো ফেরাতে না পারলে বল পেয়ে যান দিবালা। গোল করতে তেমন সমস্যা হয়নি আর। ৭৩ মিনিটে ইতালির মিডফিল্ডার মার্কো পারোলোর ক্রস থেকে বসনিয়ার উইংব্যাক, দলের অধিনায়ক সেনাদ লুলিচ আবারও এগিয়ে দেন লাৎসিওকে। এবার আর সমতা ফেরাতে পারেননি রোনালদোরা। উল্টো ম্যাচের শেষদিকে লাল কার্ড দেখে মাঠ ছাড়েন জুভেন্টাসের উরুগুইয়ান মিডফিল্ডার রদ্রিগো বেনতাঙ্কুর। তার ঠিক পরের মিনিটেই দারুণ এক ফ্রি-কিক থেকে গোল করে জুভেন্টাসের কফিনে শেষ পেরেক ঠুকে দেন ইতালির মিডফিল্ডার দানিলো কাতালদি।

এই নিয়ে পঞ্চমবারের মতো এই শিরোপা জিতে নিল লাৎসিও। ২০১৭ সালের পর আবারও এই শিরোপা জেতার পথে জুভেন্টাসকে হারাল তারা।

লাৎসিওকে হারানোর টোটকাই যেন খুঁজে পাচ্ছেন না মরিজিও সারি। এই মাসে দুটি ম্যাচ হারল জুভেন্টাস, দুটিই এই লাৎসিওর বিপক্ষে!

ট্রফিটা জিতলে এই নিয়ে ক্লাব ক্যারিয়ারে মোট তিরিশটা ট্রফি জেতা হয়ে যেত রোনালদোর। সেটা পাওয়ার জন্য তাঁকে এখনো বেশ কিছু সময় অপেক্ষা করতে হবে বলেই মনে হচ্ছে!

By Abraham

Translate »