Advertisements

খাগড়াছড়ির মাটিরাঙা উপজেলার ধল্যাছড়া মৌজার দুর্গম কমল চরণ কার্বারী পাড়া এলাকায় প্রায় ২০০ বিঘা গাঁজা ক্ষেত ধ্বংস করেছে সেনাবাহিনী। তবে গাঁজা চাষের সঙ্গে জড়িত কাউকে আটক করা যায়নি।

বৃহস্পতিবার দুপুরে খাগড়াছড়ি অঞ্চলের মহালছড়ি জোনের মেজর আসিফ ইকবালের নেতৃত্বে এই অভিযান পরিচালিত হয়। অভিযানে ৩৫টি গাঁজা ক্ষেতের প্রায় ১ কোটি টাকা মূল্যের গাঁজা আগুনে পুড়িয়ে ধ্বংস করা হয়।

এ বিষয়ে মাটিরাঙা থানার উপ-পরিদর্শক মহিউদ্দিন আহম্মদ জানান, এত দুর্গম এলাকায় নজরদারি রাখা কঠিন। তাই লোকচক্ষুর আড়ালে গ্রামের লোকজন গাঁজার আবাদ করেছে। এ ঘটনায় এখন পর্যন্ত কাউকে আটক করা যায়নি। তবে গাঁজা চাষের সঙ্গে সম্পৃক্তদের আটকের চেষ্টা চলছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, খাগড়াছড়ির দুর্গম পাহাড়ে দীর্ঘদিন ধরে গাঁজা চাষ হচ্ছে। মূলত লোকচক্ষুর অন্তরালে পাহাড়ি এলাকাকে কেন্দ্র একটি গোষ্ঠী গাঁজার আবাদ করছে।

স্থানীয় ইউপি সদস্য চন্দ্র কিরণ ত্রিপুরা জানান, কীভাবে এ এলাকায় গাঁজার জগৎ গড়ে উঠেছে, তা আমার জানা নেই। ভবিষ্যতে যাতে কেউ এ ধরণের কাজ করতে না পারে সে ব্যাপারে সর্তক থাকতে হবে।

আজকের অভিযানে অংশগ্রহণকারী মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের উপ-পরিদর্শক আবুল কালাম আজাদ জানান, শত কোটি টাকা মূল্যের গাঁজাক্ষেত ধ্বংসে কাজ করছেন তারা। আঞ্চলিক রাজনৈতিক দলের মদদে এ মাদক ব্যবসা করা হতো বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, এর আগে ২২ ডিসেম্বর খাগড়াছড়ি অঞ্চলের মহালছড়ি জোনের কলাবুনিয়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে ৪ কোটি টাকা মূল্যের ৭ বিঘা জমির গাঁজা ক্ষেত ধ্বংস করেছিল সেনাবাহিনী।

By Abraham

Translate »