Advertisements

সিরিজের প্রথম ম্যাচে নিউজিল্যান্ডের ছুড়ে দেওয়া ২০৪ রানের বিশাল লক্ষ্য ব্যাটসম্যানদের সাফল্যে ছুঁয়ে ফেলেছিল ভারত। দ্বিতীয় ম্যাচে ব্যাটসম্যানদের চাপ নিতে হলো না, কারণ এবার সফরকারীদের জয়ের সব রাস্তা পরিষ্কার করে রেখেছিলেন বোলাররাই। ব্যাটসম্যানরা শুধু সেই রাস্তায় অনায়াসে হেঁটে জয়ের উৎসব করেছেন।

অকল্যান্ডে রোববার (২৬ জানুয়ারি) দ্বিতীয় টি-টোয়েন্টি ম্যাচে শুরুতে ব্যাট করতে নেমে ৫ উইকেট হারিয়ে মাত্র ১৩২ রান সংগ্রহ করে নিউজিল্যান্ড। জবাবে ৭ উইকেট আর ১৫ বল হাতে রেখেই জিতে যায় ভারত। এই জয়ের ৫ ম্যাচের সিরিজে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে গেল কোহলিবাহিনী।

প্রথম ম্যাচের মতো এই ম্যাচে ব্যাট হাতে ঝড় তুলতে পারেননি কিউই ব্যাটসম্যানরা। বরং মোহাম্মদ শামি, জসপ্রীত বুমরাহ এবং রবীন্দ্র জাদেজাদের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ের সামনে শুরু থেকেই খাবি খেয়েছেন স্বাগতিক ব্যাটসম্যানরা।

ওপেনিংয়ে নেমে মার্টিন গাপটিল আর কলিন মুনরো তবু ৪৮ রানের জুটি গড়েছিলেন। কিন্তু ৩৩ রান করে গাপটিলের বিদায়ের পর কিউইদের রানের চাকা ‘স্লো’ হয়ে যায়। মুনরো ২৬ রানের ইনিংস খেলতে খরচ করেন ২৫ বল।

কিউই ইনিংসে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান আসে টিম সেইফার্টের ব্যাট থেকে। কিন্তু শেষদিকে নেমে ২৬ বলে তার ৩৩ রানের ইনিংস মোটেও মানানসই নয়। তবে ২৪ বলে ১৮ রানের ইনিংস খেলে সবচেয়ে অবাক করেছেন অভিজ্ঞ রস টেইলর।

বল হাতে ভারতের জাদেজা ৪ ওভারে ১৮ রান খরচে নিয়েছেন ২ উইকেট। ১টি করে উইকেট নিয়েছেন শার্দূল ঠাকুর, বুমরাহ, শিভাম দুবে।

জবাবে দলীয় ৮ রানেই রোহিত শর্মার উইকেট হারায় ভারত। অধিনায়ক বিরাট কোহলিও মাত্র ১১ রানেই বিদায় নেন। কিন্তু এখান থেকেই দলকে ১২৫ রান পর্যন্ত টেনে নেন লোকেশ রাহুল ও শ্রেয়াস আইয়ার।

৫০ বলে  ৫৭ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত থাকেন রাহুল। তবে তুলনামূলক আক্রমণাত্মক ব্যাট করে ৩৩ বলে ৪৪ রান করে বিদায় নেন শ্রেয়াস। এরপর ৪ বলে ৮ রানের ইনিংস খেলে রাহুলকে শেষ পর্যন্ত সঙ্গ দেন দুবে।

বল হাতে নিউজিল্যান্ডের টিম সাউদি ২টি আর ইশ সোদি ১ উইকেট নিয়েছেন।

ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন ভারতের লোকেশ রাহুল।

By Abraham

Translate »