Advertisements

প্রতিপক্ষের কাছে হতাশজনকভাবে হেরে কোপা দেল-রে’র কোয়ার্টার ফাইনাল থেকেই একে একে বিদায় নিল দুই চির প্রতিদ্বন্দ্বী রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনা। 

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার রাতে সান মামেসে শেষ আটের ম্যাচের যোগ করা সময়ে একমাত্র গোলটি করেন ইনাকি উইলিয়ামস। অন্যদিকে, সান্টিয়াগো বার্নাব্যুতে ৪-৩ গোলে হেরেছে রিয়াল। যাতে প্রায় ৬৫ বছর পর একই দিনে কোপা দেল রে থেকে ছিটকে গেল রিয়াল মাদ্রিদ ও বার্সেলোনা।

এদিন বিরতির আগে এক গোল খাওয়া রিয়াল মাদ্রিদ দ্বিতীয়ার্ধে হজম করেছে আরও তিনটি। শেষ দিকে দুটি গোল পরিশোধ করে রোমাঞ্চ জাগালেও বিপর্যয় এড়াতে পারেনি জিনেদিন জিদানের দল। রিয়াল মাদ্রিদকে হারিয়ে কোপা দেল-রে’র সেমি-ফাইনালে উঠেছে রিয়াল সোসিয়েদাদ।

সব প্রতিযোগিতা মিলে ২১ ম্যাচ অপরাজিত থাকার পর হারের মুখ দেখল স্পেনের সফলতম ক্লাবটি। অক্টোবরে লা লিগায় রিয়াল মায়োর্কার কাছে ১-০ গোলে হারের পর থেকে অপরাজিত ছিল রিয়াল মাদ্রিদ। স্পেনের দ্বিতীয় সেরা প্রতিযোগিতায় ট্রফি খরা আরও লম্বা হলো রিয়ালের।

২০১৩-১৪ সিজনে একই প্রতিযোগিতায় নিজেদের ১৯তম ও শেষ ট্রফি জিতেছিল রিয়াল মাদ্রিদ। ২২তম মিনিটে রিয়ালের প্রথম গোল হজমে দায় আছে একাদশে সুযোগ পাওয়া গোলরক্ষক আলফুঁস আরিওলার। পাল্টা আক্রমণে আলেকসান্দার ইসাকের শট ফেরালেও পুরোপুরি বিপদমুক্ত করতে পারেননি ফরাসি ফুটবলার। মার্তিন ওদেগার্দের ফিরতি শটে তেমন কোনো হুমকি ছিল না, কিন্তু গোলরক্ষকের পায়ে লেগে বল জালে জড়ায়।

বিরতির পরপরই রিয়ালের গোলে আবার বল জড়ান ইসাক। তবে ভিএআরের সাহায্য নিয়ে অফ-সাইডের বাঁশি বাজান রেফারি। ৫৪ মিনিটে আর ইসাককে রুখতে পারেনি রিয়াল। দুর্দান্ত এক ভলিতে গোল খুঁজে নেন তিনি। দু’মিনিট পর প্রতিপক্ষ রক্ষণের ভুলের সুযোগে আরও এক গোল করে দলকে সুবিধাজনক জায়গায় পৌঁছে দেন সুইডেনের ফরোয়ার্ড, ইসাক।

৫৯ মিনিটে ব্যবধান কমান মার্সেলো। ব্রাহিম দিয়াসের পাস ডি-বক্সে ফাঁকায় পেয়ে কাছের পোস্ট দিয়ে লক্ষ্যভেদ করেন ব্রাজিলের ডিফেন্ডার, মার্সেলো। ১০ মিনিট পর ইসাকের ডিফেন্স চেরা পাস পেয়ে বাঁ পায়ের শটে আবার ব্যবধান বাড়ান মিকেল মেরিনো। ৭৯ মিনিটে সোসিয়াদের গোলে বল পাঠান ভিনিসিউস জুনিয়র। তবে ভিএআরের সাহায্য নিয়ে অফ-সাইডের বাঁশি বাজান রেফারি।

দুই মিনিট পর ভিনিসিউসের পাস থেকে ব্যবধান কমান বদলি নামা রদ্রিগো। অতিরিক্ত সময়ের তৃতীয় মিনিটে করিম বেনজেমার পাস থেকে হেডে লক্ষ্যভেদ করে নাটকীয়তার ইঙ্গিত দেন নাচো ফের্নান্দেস। দু’মিনিট পর আন্দোনি লাল কার্ড দেখলে ১০ জনের দলে পরিণত হয় সোসিয়েদাদ। শেষ সময়ে মরিয়া চেষ্টা করেও সমতাসূচক গোলের দেখা পায়নি রিয়াল মাদ্রিদ।

অন্যদিকে, আটলেটিকো বিলবাওয়ের মাঠে হেরে বার্সার মৌসুমের শুরুটা হয়েছিল হতাশাজনক। আবারও সেই দলের বিপক্ষে হেরে বসল বার্সেলোনা। শেষ মুহূর্তে গোল খেয়ে ছিটকে গেল কোপা দেল রের শিরোপা লড়াই থেকে। কিকে সেতিয়েনের দলকে ১-০ গোলে হারিয়ে সেমি-ফাইনালে উঠেছে বিলবাও।

বরাবরের মতো এ ম্যাচেও বল দখলে একচেটিয়া আধিপত্য করে বার্সেলোনা। আক্রমণেও এগিয়ে ছিল তারা। গোলের উদ্দেশ্যে মোট ১১টি শট নেয় দলটি, যার চারটি ছিল লক্ষ্যে। কিন্তু কাঙ্ক্ষিত গোলের দেখা পায়নি।

উল্টো হলুদ কার্ড পাওয়ার দিক থেকে প্রতিপক্ষকে ছাড়িয়ে গেছে বার্সেলোনা। মোট নয়বার হলুদ কার্ড দেখান রেফারি, যার মধ্যে ছিলেন লিওনেল মেসিসহ কাতালান ক্লাবটির ছয়জন।

বিপরীতে ৩০ শতাংশের একটু বেশি বল দখলে রাখা বিলবাও মোট আটটি শট নিতে পারে। এর মাত্র দুটি ছিল লক্ষ্যে, তাতেই মূল্যবান গোলটি আদায় করে নেয় দলটি।

পাঁচ মিনিট যোগ করা সময়ের তৃতীয় মিনিটে ইবাই গোমেসের ক্রসে হেডে ঠিকানা খুঁজে নেন স্প্যানিশ ফরোয়ার্ড উইলিয়ামস। যদিও এ গোলে যথেস্ট অবদান ছিল সার্জিও বুস্কেটস এর। অনেকটা অত্মঘাতী গোলে রূপ নেয় সেটি। যাতে আরেকবার কোপা দেল রে থেকে ছিটকে যায় বার্সাও।

By Abraham

Translate »