Advertisements

দক্ষতার সঙ্গে দেশের সার্বভৌমত্ব রক্ষা করতে সশস্ত্র বাহিনীর প্রশিক্ষণ আরো বাড়ানোর আহ্বান জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেছেন, ডিজিটাল পদ্ধতি দিয়ে সন্ত্রাসবাদের ঝুঁকি মোকাবিলা করতে হবে।

রোববার (৯ ফেব্রুয়ারি) সকালে মিরপুর সেনানিবাসে সামরিক বাহিনী কমান্ড ও স্টাফ কলেজের গ্র্যাজুয়েশনের সনদ বিতরণ অনুষ্ঠানে এ কথা বলেন তিনি।

সশস্ত্র বাহিনীর মধ্য স্তরের নির্বাচিত কর্মকর্তাদের কমান্ড ও স্টাফ পর্যায়ে দায়িত্ব পালনে দক্ষতা বাড়ানোর উদ্দেশ্যে গড়ে তোলা হয় সামরিক বাহিনী কমান্ড এন্ড স্টাফ কলেজ। প্রতি বছর এখানে উচ্চতর পর্যায়ের প্রশিক্ষণ নিতে অংশ নেন দেশ-বিদেশের কর্মকর্তারা।

রোববার সকালে ২০১৯-২০ শিক্ষাবর্ষের কোর্স সম্পন্নকারীদের হাতে সনদ তুলে দিতে মিরপুর সেনানিবাসে আসেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে, সেনাবাহিনীর ১২৫ জন, নৌবাহিনীর ৩৪ জন, বিমান বাহিনীর ২২ জন কর্মকর্তার পাশাপাশি যুক্তরাষ্ট্র, চীন, ভারত, ইন্দোনেশিয়া, সৌদি আরবসহ ২৩ দেশের ৫৭ জন কর্মকর্তা ও ২৪১ প্রশিক্ষণার্থীর হাতে সনদ তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

পরে বক্তব্যে তিনি বলেন, দেশের সুনিশ্চিত ভবিষ্যৎ’ গড়তে কাজ করছে সরকার। সার্বভৌমত্ব নিশ্চিত করতে সশস্ত্র বাহিনীর প্রযুক্তিগত দক্ষতা অর্জন করার তাগিদ দেন প্রতিরক্ষামন্ত্রী।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, দেশের সকল প্রতিষ্ঠানকে উন্নত ও আধুনিক করার কাজ করে যাচ্ছে সরকার। খু্ব অল্প ভাবেই শুর হয়েছিলো সামরিক বাহিনী কমান্ড এন্ড স্টাফ কলেজের যাত্রা। সেই আজ আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পূর্ন প্রতিষ্ঠানে পরিনত হয়েছে। শুরু করলেই পারা যায়, এটাই তার প্রমাণ।

আগামী দিনে সন্ত্রাসবাদের সম্ভাব্য ঝুঁকি প্রতিরোধের কথা মাথায় রেখে সরকার কাজ করছে জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, মানুষের আস্থা অর্জন করেছে সশস্ত্র বাহিনী।

তিনি বলেন, আমাদের বাহিনী যেখানেই যাচ্ছে সেখানেই সুনাম অর্জন করছে। সামরিক অফিসার হিসেবে নয়, মানবিকতার দিক দিয়ে তারা মানুষের মন জয় করছে। এ কারণে তাদের আমার পক্ষ থেকে অভিনন্দন।

পরে, কোর্স সম্পন্ন করা দেশি-বিদেশি গ্র্যাজুয়েটদের সঙ্গে কুশল বিনিময় করেন প্রধানমন্ত্রী।

By Abraham

Translate »