জানাঅজানা

সুন্দর উপহারে হোক ভালোবাসার প্রকাশ

Advertisements

আজ বিশ্ব ভালোবাসা দিবস বা ‘ভ্যালেন্টাইনস ডে’। শুধু তরুণ-তরুণী নয়, নানা বয়সের মানুষের ভালোবাসার বহুমাত্রিক রূপ প্রকাশের আনুষ্ঠানিক দিন এটি।

ভালোবাসা যেমন মা-বাবার প্রতি সন্তানের, তেমনি মানুষে-মানুষে ভালোবাসাবাসির দিন ১৪ ফেব্রুয়ারি। তাইতো এইদিন চকলেট, পারফিউম, গ্রিটিংস কার্ড, আংটি, প্রিয় পোশাক, অথবা বইসহ প্রিয়জনকে বিভিন্ন উপহার দেওয়া হয়। তাই দিবসটি ঘিরে বিভিন্ন বিপণিবিতানও নিজেদের সাজিয়েছে নান্দনিক সাজে।

মঙ্গলবার (১১ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর বিভিন্ন দোকান ঘুরে দেখা যায়, ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে দোকানিরা দোকানে তুলেছেন বিভিন্ন পণ্য। এর মধ্যে বেশি প্রাধান্য রয়েছে চকলেট আর পারফিউমের।

এ প্রসঙ্গে এখানকার বিভিন্ন প্রসাধনীর দোকানিরা জানান, ভালোবাসা দিবসে অন্য সবকিছুর থেকে পারফিউম এবং চকলেট একটু বেশিই প্রাধান্য পায়। পাশাপাশি বিভিন্ন আংটি, চুড়িও উপহার হিসেবে কেনেন অনেকে। আর বর্তমান সময়ে উপহার হিসেবে পারফিউম একটি সুন্দর জিনিস।

শুধু পারফিউম বা চকলেট নয়, ভালোবাসা দিবসের প্রধান চাহিদা থাকে ফুলে। প্রিয় মানুষটিকে যেই উপহারই দেওয়া হোক না কেন, তার সঙ্গে একটু ফুল যোগ করে অনন্য মাত্রা।

শাহবাগের ফুলের মার্কেট ঘুরে দেখা যায়, এখানকার দোকানিরাও দিবসটি উপলক্ষে নিত্যনতুন ফুলে সাজাতে চান নিজেদের দোকান। তবে ফুল কিনতে হলে অন্যদিনের তুলনায় এই দিন দাম গুনতে হবে একটু বেশি।

এ প্রসঙ্গে শাহবাগের ফুলের দোকানের বিক্রয়কর্মীরা বলেন, ভালোবাসা দিবসে আর কিছু না দিলেও সবাই তার প্রিয় মানুষটিকে ফুল দিয়ে ভালোবাসার শুভেচ্ছা জানাই। সেদিক থেকে আমরাও এই দিন বিভিন্ন ধরনের ফুল দিয়ে দোকান সাজাই, যদিও গোলাপের চাহিদাটাই বেশি থাকে। আর চাহিদা বেশি থাকার জন্য মূল্যটাও অন্য সময়ের তুলনায় একটু বৃদ্ধি পায়।

ভালোবাসা দিবসে প্রিয়জনের জন্য উপহার কিনতে কার্পণ্য করবেন না অনেকেই।

এ প্রসঙ্গে  শিক্ষার্থী আশফিকা বলেন, এটা ঠিক যে বাবা-মা, বন্ধু-বান্ধবসহ প্রিয় মানুষকে আমরা প্রতিদিনই ভালোবাসি। তবে এই একটি সেই ভালোবাসা একটু প্রকাশ করার আনুষ্ঠানিক মাত্রা। আর এই প্রকাশের মাধ্যম যদি একটি উপহার হয়, তবে মন্দ কি! তবে উপহারটি হতে হবে অবশ্যই সুন্দর আর নান্দনিক।

Leave a Reply