Advertisements

দুর্নীতির মামলায় সাজা নিয়ে কারাবন্দি খালেদা জিয়াকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়া নিয়ে পর্দার আড়ালে কিছু হচ্ছে না বলে মন্তব্য করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

দুই বছর ধরে কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসনের মুক্তির জন্য প্রধানমন্ত্রীর ‘মানবিকতা’ চেয়ে দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর গত শুক্রবার ওবায়দুল কাদেরের সঙ্গে ফোনে কথা বলেন।

রোববার সচিবালয়ে সমসাময়িক ইস্যু নিয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে ওবায়দুল কাদের এ প্রসঙ্গে বলেন, “খালেদা জিয়ার বিষয়টি হচ্ছে আদালতের এখতিয়ার, এটি কোনো রাজনৈতিক মামলা নয়। বিনা বিচারে তো ডিটেনশনে দেওয়া হয়নি। দুর্নীতির মামলা আদালতের এখতিয়ার। মানবিক বিবেচনা করতে পারে একমাত্র আদালত।”

খালেদা জিয়াকে প্যারোলে মুক্তি দেওয়া নিয়ে ‘পর্দার অন্তরালে’ বিএনপির সাথে কোনো সমঝোতা হচ্ছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, “পর্দার অন্তরালে কিছুই নেই, সবকিছু ওপেন সিক্রেট। কোনোটারই সিক্রেসি থাকবে না, সিক্রেসির কালচার নেই।”

কাদের বলেন, “এই যে দেখুন, কালকে একটা টকশোতে শুনলাম, মুক্তির বিষয়ে বিএনপি মহাসচিব আওয়ামী লীগ সেক্রেটারি জেনারেলের সাথে কথা বলতেই পারেন। তার মুক্তির ব্যাপারে আলাপ করতে পারেন এবং প্রধানমন্ত্রীকে আমি জানাব এটা স্বাভাবিক, এটি রাজনৈতিক শালিনতার বিরোধী নয়। এখানে গোপনীয়তার কি আছে? মির্জা ফকরুল আবেদন করতেই পারেন।

“তিনি বলেছেন প্রধানমন্ত্রীকে জানানোর জন্য, আমি বিষয়টি প্রধানমন্ত্রীকে জানিয়েছি অবহিত করেছি। মানবিক কারণে মুক্তি চান, মুক্তি চাইবেন এটাই স্বাভাবিক। তার কোনো গোপনীয়তা নেই যে ফাঁস করে দিয়ে অন্যায় করেছি।”

প্রধানমন্ত্রীকে জানানোর পর তিনি কোনো প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন কিনা জানতে চাইলে ওবায়দুল কাদের বলেন, “না আমাকে কিছু বলেননি।”

খালেদার প্যারোলের বিষয়টি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এখতিয়ার জানিয়ে তিনি বলেন, “প্যারোল আবেদন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর কাছে করবেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী এখনও লিখিত এ আবেদন পাননি।”

আবেদন করলে মুক্তি দেওয়া হবে কিনা জানতে চাইলে কাদের বলেন, “তিনি করুন আগে, প্যারোলের নিয়ম আছে একটি যুক্তিযুক্ত কারণে মুক্তি পায়। যুক্তিযুক্ত কিনা তা তো বিবেচনা করতে হয়।”

By Abraham

Translate »