Advertisements
বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিনসহ সমসাময়িক নানা ইস্যুতে বৈঠক করেছেন দলটির স্থায়ী কমিটির সদস্যরা।
রাজধানীর (২২ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর গুলশানে দলীয় চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বিকেল ৫টায় এ বৈঠক শুরু হয়ে চলে রাত ৮টা পর্যন্ত।
গত বুধবার আবারো উচ্চ আদালতে জামিন আবেদন করেছেন বিএনপি চেয়ারপারসনের আইনজীবীরা। রোববার এ জামিনের শুনানি হওয়ার কথা রয়েছে। এদিকে, বেগম জিয়ার শারীরিক অবস্থার অবনতি হয়েছে দাবি করে পরিবারের পক্ষ থেকে বিএসএমএমইউ কর্তৃপক্ষের কাছে দেশের বাইরে চিকিৎসার জন্য আবেদন করা হয়। এমনকি জামিন আবেদনেও এ কথা উল্লেখের পাশাপাশি বেগম জিয়ার সুচিকিৎসার স্বার্থে তাকে লন্ডনে নিয়ে যাওয়ার কথা বলা হয়েছে। মূলত এ বিষয়ে নিজেদের করণীয় নিয়েই বৈঠকে আলোচনা হয়।
এদিকে, আজ রোববার উচ্চ আদালত থেকে বেগম খালেদা জিয়াকে জামিন দেয়া না হলে রাজপথের আন্দোলনের মাধ্যমে তাকে মুক্ত করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন দলটির নীতিনির্ধারণী পর্যায়ের নেতারা। তারা বলছেন, ন্যায়-বিচার পাওয়ার পথ একেবারেই বন্ধ হয়ে গেলে রাজনৈতিকভাবেই বিষয়টি মোকাবিলা করবে বিএনপি। এদিকে, বেগম জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানি আজ হাইকোর্টের কার্যতালিকার এক নম্বরে রাখা হয়েছে।
দুর্নীতির মামলায় কারাবন্দী বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে শনিবার সকালে জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে মানববন্ধন কর্মসূচির আয়োজন করে জাতীয়তাবাদী মুক্তিযুদ্ধের প্রজন্ম নামের একটি সংগঠন। এতে যোগ দেন বিএনপি’র ভাইস চেয়ারম্যান মেজর অবসরপ্রাপ্ত হাফিজ উদ্দিন আহমেদ। বেগম জিয়ার মুক্তির জন্য দলের পক্ষ থেকে কার্যকর কোনো কর্মসূচি না দেয়ায় হতাশা প্রকাশ করে তিনি বলেন, রাজপথের আন্দোলনেই দাবি আদায় করতে হবে।
আইনগত প্রক্রিয়ায় দাবি আদায় না হলে বিএনপি রাজনৈতিকভাবেই বিষয়টি মোকাবিলা করবে বলে মন্তব্য করেন দলের স্থায়ী কমিটির সদস্য আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী।
স্বাস্থ্যগত ও আইনগত কারণেই বেগম জিয়ার জামিন পাওয়ার অধিকার রয়েছে বলেও মন্তব্য করেন বিএনপি নেতারা।

By Abraham

Translate »