জাতীয়

পিলখানা হত্যা দিবস আজ

Advertisements

আবার ফিরে এলো শোকাবহ সেই ২৫ ফেব্রুয়ারি। পূর্ণ হলো পিলখানা বিদ্রোহ আর হত্যাযজ্ঞের ১১ বছর। যা বাংলাদেশের ইতিহাসের এক কলঙ্কময় দিন। আজ কান্নায় ভারি হয়ে উঠবে সেই সব পরিবার যারা হারিয়েছে স্বামী, সন্তান। দেশ হারিয়েছে স্বর্ণ সেনাদের যারা এক এক জন ছিলেন দেশের সম্পদ।

মঙ্গলবার বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ব্যবস্থাপনায় সকাল ৯টার দিকে বনানী সামরিক কবরস্থানে মহামান্য রাষ্ট্রপতির প্রতিনিধি, প্রধানমন্ত্রীর প্রতিনিধি, মাননীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, তিন বাহিনীর প্রধানরা (সম্মিলিতভাবে), স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের জননিরাপত্তা বিভাগের সিনিয়র সচিব এবং বিজিবি মহাপরিচালক (একত্রে) শহীদদের স্মৃতিস্তম্ভে পুষ্পস্তবক অর্পণ করবেন।

২০০৯ সাল এই দিনে বাংলাদেশ রাইফেলস বা তৎকালীন বিডিআরের জওয়ানরা (বর্তমানে বিজিবি) সশস্ত্র বিদ্রোহে ৫৭ জন সেনাকর্মকর্তাসহ ৭৪ জনকে হত্যা করে। নৃশংস এই ঘটনায় স্তব্ধ হয়ে যায় পুরো দেশ। আলোচনা সমালোচনার ঝড় উঠে বিশ্ব জুড়ে।

২০০৯ সালের ২৫ ফেব্রুয়ারি। বুধবার সকাল ৯টা ২৭ মিনিট। পিলখানার ভেতর থেকে ভেসে আসে গুলি বর্ষনের শব্দ।  প্রথমে সেখানে বসবাস করা অনেকেই ভেবেছিলেন নিয়মিত মহড়া। কিন্ত ঘণ্টা দুয়েকের মধ্যেই জানা যায় বিদ্রোহের ঘটনা। এলাকা জুড়ে সৃষ্টি হয় আতঙ্ক।