আইন-আদালত জাতীয় রাজনীতি

এমপি হতে ১০ কোটি টাকা খরচ করেছিলেন পাপিয়া

Advertisements
যুব মহিলা লীগ থেকে বহিষ্কৃত নেত্রী শামীমা নূর পাপিয়া একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ থেকে মনোনয়ন পাওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। এ জন্য তিনি ১০ কোটি টাকা খরচ করেন। আর তিন কোটি টাকা খরচ করেছিলেন নরসিংদী যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক পদ পেতে। রিমান্ডে জিজ্ঞাসাবাদে তিনি ও তার স্বামী এ তথ্য জানিয়েছেন বলে তদন্তকারী সূত্রে জানা গেছে। 
রিমান্ডে থাকা পাপিয়া ও তার স্বামী মফিজুর রহমান ওরফে সুমন চৌধুরীর বরাত দিয়ে ঢাকা মহানগর পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগের (ডিবি) একটি সূত্র শনিবার (২৯ ফেব্রুয়ারি) জানায়, নরসিংদীতে সংসদ সদস্য পদে মনোনয়ন পেতে ১০ কোটি টাকা বিনিয়োগ করে সর্বোচ্চ চেষ্টা করেছিলেন পাপিয়া। তবে যারা মনোনয়ন পাইয়ে দেওয়ার দায়িত্ব নিয়েছিলেন তারা ব্যর্থ হন। ওই নেতাদের মধ্যে রয়েছেন— ঢাকা মহানগর যুব মহিলা লীগের তিন নেত্রী, কয়েক সাবেক মন্ত্রী ও এমপি এবং গুরুত্বপূর্ণ কয়েক নেতা। পরে মনোনয়ন পাননি তিনি এবং ১০ কোটি টাকাও ওঠাতে পারেননি। ফলে স্বামী ও সাঙ্গপাঙ্গদের নিয়ে তার অপরাধমূলক কর্মকাণ্ড আরো বেড়ে যায়।
সূত্র জানায়, ডিবিতে জিজ্ঞাসাবাদে পাপিয়া ও তার স্বামী সুমন চৌধুরী অনেক তথ্য দিচ্ছেন। তাদের কখনো আলাদাভাবে, কখনো দুজনকে মুখোমুখি করে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। রিমান্ডে তাদের দুই সহযোগী সাব্বির ও তায়্যিবাকেও জিজ্ঞাসাবাদ করে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া যাচ্ছে।
পাপিয়া ও সুমন চৌধুরীর অপরাধ জগত সম্পর্কে তায়্যিবা ডিবিকে জানিয়েছেন, অনেক সময় চাহিদামতো থাইল্যান্ড, নেপাল, ভারত, ভুটান ও রাশিয়া থেকে মেয়েদের নিয়ে আসা হতো। পার্বত্য অঞ্চল থেকেও পাহাড়ি মেয়েদের নিয়ে আসতেন পাপিয়া।
ডিবি সূত্র জানিয়েছে, ২০১৫ সালের দিকে জেলা যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক হতে পাপিয়া খরচ করেছিলেন তিন কোটি টাকা। এছাড়া প্রভাবশালী কয়েকজন রাজনৈতিক নেতাকে দিয়েছিলেন বিশেষ উপহার। তাদের নির্দেশেই ওই সময় পাপিয়া যুব মহিলা লীগের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন।