Advertisements

চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী বার্সেলোনাকে এক ম্যাচে হারিয়ে শুধু তিনটি পয়েন্টই নয়, বরং অনেক কিছুই অর্জন করেছে রিয়াল মাদ্রিদ

ম্যাচ শুরুর আগে পয়েন্ট টেবিলে রিয়াল মাদ্রিদের অবস্থান ছিল দুইয়ে, বার্সেলোনা একে। দুই পয়েন্ট পিছিয়ে ছিল রিয়াল। ম্যাচের পর শুধুই রিয়ালের জয়জয়কার। পূর্ণ তিন পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে এখন তাঁরা। লিগ জেতার স্বপ্ন দেখছে দলটি।

ধু এটাই নয়। রিয়ালের আরও বেশ কিছু অর্জনের সাক্ষী হয়েছে গতকালের এল ক্লাসিকো। ক্লাসিকোর ইতিহাসে জয় লাভের ক্ষেত্রে গতকাল পর্যন্ত রিয়াল-বার্সা ছিল সমানে-সমান। দুই দলেরই ছিল সমান ৭২টা করে জয়। কালকের এই জয়টা পেয়ে রিয়াল এগিয়ে গেল দুই দলের মধ্যে চলতে থাকা নিরন্তর এই লড়াইয়ে। রিয়ালের জয় এখন ৭৩টা। মোট ১৮০ টা লিগ ম্যাচের মধ্যে ৩৫টা ম্যাচ ড্র-ও করেছে এই দুই দল।

দলের দ্বিতীয় গোলটা করে রিয়ালকে একটা অনন্য সম্মান এনে দিয়েছেন স্ট্রাইকার মারিয়ানো দিয়াজ। ক্লাসিকোর ইতিহাসে বার্সেলোনার চেয়ে এখন রিয়াল মাদ্রিদের দেওয়া গোলের সংখ্যা বেশি। এল ক্লাসিকোতে বার্সেলোনা গোল করেছে ছয় হাজার ১৫১টা। ম্যাচ শুরুর আগে রিয়ালের গোল ছিল ছয় হাজার ১৫০টা। দুই গোল করে দলকে এই তালিকাতেও এগিয়ে দিয়েছেন ভিনিসিয়ুস ও মারিয়ানো দিয়াজ।

বদলি খেলোয়াড় হিসেবে এল ক্লাসিকোর ইতিহাসে দ্রুততম গোল করার রেকর্ড করেছেন মারিয়ানো দিয়াজ। করিম বেনজেমার ও লুকা ইয়োভিচের কারণে মূল দলে তেমন সুযোগ না পাওয়া এই স্ট্রাইকার সুযোগ পেয়েই কাজে লাগিয়েছেন, মাঠে নামার পঞ্চাশ সেকেন্ডের মাথায় করে বসেছেন গোল। এ শতাব্দীতে বদলি খেলোয়াড় হিসেবে এত দ্রুত গোল করার রেকর্ড আর কারওর নেই।

শুধু মারিয়ানোই নয়, গোল করে রেকর্ড বইয়ে নাম লিখিয়েছেন আরেক গোলদাতা ভিনিসিয়ুস জুনিয়রও। ১৯ বছর ২৩৩ দিন বয়সী এই তারকা এখন একবিংশ শতাব্দীতে লা লিগার ক্লাসিকো ইতিহাসের সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতা। আগে এই রেকর্ডটা ছিল লিওনেল মেসির। লা লিগায় ক্লাসিকোতে নিজের প্রথম গোল করার সময় মেসির বয়স ছিল ১৯ বছর ২৫৯ দিন।

By Abraham

Translate »