Advertisements

গেইমের নাম ‘প্লেগ ইনকর্পোরেটেড’ আর এই গেইমের চ্যালেঞ্জ হচ্ছে গোটা বিশ্বে প্রাণঘাতি ভাইরাস ছড়িয়ে দেওয়া। করোনাভাইরাস নিয়ে বিশ্বব্যপী উৎকণ্ঠার মধ্যেই  গেইমটি নিষিদ্ধ হয়েছে চীনে, যেখান থেকে ছড়িয়েছে করোনাভাইরাস।

গেইমটির নির্মাতা অবশ্য একটি ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠান। তারাই জানিয়েছে এই নিষিদ্ধের খবর।

নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এনডেমিক ক্রিয়েশনস এক বিবৃতিতে বলছে, “চীনে আমাদের খেলোয়াড়দের জন্য দুঃসংবাদ রয়েছে। আমরা মাত্রই জানতে পেরেছি যে, সাইবারস্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন অফ চায়নার সিদ্ধান্ত অনুসারে গেইমটিকে চীনের অ্যাপ স্টোর থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। কারণ হিসেবে তারা বলেছেন,  প্লেগ ইনকর্পোরেট গেইমটিতে ‘চীনে বৈধ নয় এমন কনটেন্ট রয়েছে’। পুরো বিষয়টিই আমাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে।”

আপাতদৃষ্টিতে বিষয়টি যুক্তিযুক্ত মনে হতেই পারে। তবে, গেইমটির নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি বলছে ভিন্ন কথা। তাদের ব্ক্তব্য হলো, ওই গেইমের মাধ্যমে খেলোয়াড়রা বরং সংক্রামক রোগ সম্পর্কে জানতে পারছিলেন।

“চীন যে করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের মুখোমুখি হয়েছে, সেটির সঙ্গে গেইম মুছে দেওয়ার বিষয়টি জড়িত কিনা তা আমরা পরিষ্কারভাবে বুঝতে পারছি না। প্লেগ ইনকর্পোরেটের শিক্ষামূলক গুরুত্ব সিডিসি’র মতো (সেন্টার ফর ডিজিস কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশন) বহু সংস্থা দ্বারা স্বীকৃত এবং আমরা বর্তমানে কোভিড-১৯ শনাক্ত ও নিয়ন্ত্রণে প্রধান বৈশ্বিক স্বাস্থ্য সংস্থাগুলোর প্রচেষ্টায় কীভাবে সর্বোচ্চ সমর্থন দেওয়া যায় তা নির্ধারণে সংস্থাগুলোর সাথে কাজ করছি।” – বিবৃতিতে বলেছে এনডেমিক ক্রিয়েশনস।

আট বছর আগে যাত্রা শুরু করে প্লেগ ইনকর্পোরেট গেইমটি। বর্তমানে বিশ্বব্যাপী ১৩ কোটি গেইমার গেইমটি খেলে থাকেন। বিবিসি উল্লেখ করেছে, করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের পর চীনে গেইমটির জনপ্রিয়তা বেড়েছিল এবং জানুয়ারি মাসে দেশটির ‘সর্বোচ্চ বিক্রিত অ্যাপে’ পরিণত হয়েছিল গেইমটি।

এদিকে, বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় জানিয়েছেন, ভাইরাসকে ঘিরে থাকা ভয় কাটাতে গেইমটি ডাউনলোড করেছিলেন তারা।

By Abraham

Translate »