Advertisements

অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট বিস্ফোরণে ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়া লেবাননের রাজধানী বৈরুতের সড়ক এবার বিক্ষোভে উত্তপ্ত হয়ে উঠেছে। সরকারবিরোধী অবস্থান নিয়ে বিক্ষোভকারীরা রাস্তায় নামলে নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষে এ পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়েছে।

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার (০৬ আগস্ট) রাতে লেবাননের সংসদ ভবনের সামনের সড়কে বিক্ষোভকারীরা সরকারবিরোধী অবস্থায় নেয়। এ সময় নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের সঙ্গে তাদের সংঘর্ষ হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে বিক্ষোভকারীদের লক্ষ্য করে কাঁদুনে গ্যাস নিক্ষেপ করা হয়।

গত মঙ্গলবারের (০৪ আগস্ট) বিস্ফোরণের ঘটনায় বিক্ষোভকারীরা ক্ষিপ্ত হয়ে রাস্তায় নেমে আসেন। ২০১৩ সাল থেকে অরক্ষিতভাবে ২ হাজার ৭৫০ টন অ্যামোনিয়াম নাইট্রেট মজুদ রাখায় ভয়াবহ ওই বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে জানিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

সরকারের ‘দায়িত্বহীনতার’ কারণে এই বিস্ফোরণ ঘটেছে বলে অনেক বিক্ষোভকারী বলছেন, যাতে ১৫৭ জন মারা গেছেন (শেষ খবর পর্যন্ত) এবং আহত হয়েছেন ৫ হাজারের বেশি মানুষ। ৩ দশমিক ৩ মাত্রার ভূমিকম্পে কেঁপে ওঠা ওই বিস্ফোরণে পুরো বৈরুত শহর ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে। এখনও নিখোঁজ রয়েছেন বহু মানুষ। তাদের সন্ধানে বিস্ফোরণস্থলে প্রতিদিন হাজির হচ্ছেন স্বজনরা।

এদিকে বিস্ফোরণের ঘটনায় জরুরি তদন্তের স্বার্থে ১৬ জনকে আটক করা হয়েছে বলে জানিয়েছে লেবাননের রাষ্ট্রীয় সংবাদ সংস্থা। যদিও ওই ঘটনার পর দুই কর্মকর্তা স্বেচ্ছায় পদত্যাগ করেছেন।

এর আগে বৃহস্পতিবার ঘটনাস্থল পরিদর্শনে যান ফ্রান্সের প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাঁক্রো। এ সময় তিনি সাংবাদিকদের কাছে লেবানন কর্তৃপক্ষের ‘গভীর থেকে পরিবর্তনের’ কথা বলেন। একইসঙ্গে বিস্ফোরণের ঘটনায় আন্তর্জাতিক তদন্তের দাবি জানান।

By Abraham

Translate »