Advertisements

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্কে গুলিতে দুজন নিহত ও ১৪ জন আহত হয়েছেন। এই অঙ্গরাজ্যের রচেস্টার শহরে শুক্রবার দিবাগত রাতে এ ঘটনা ঘটে বলে জানিয়েছে পুলিশ। খবর এএফপির।

রচেস্টারের ভারপ্রাপ্ত পুলিশ প্রধান মার্ক সিমনস আজ শনিবার সাংবাদিকদের বলেন, শহরের একটি বাড়ির পেছন দিকের বাগানে এক পার্টিতে গুলি চালানোর খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে যায়। সেখানে পুলিশ কর্মকর্তা দেখতে পান, প্রায় ১০০ মানুষ প্রাণ বাঁচাতে এদিক-সেদিক ছুটছেন।

মার্ক সিমনস বলেন, বেআইনিভাবে ওই পার্টির আয়োজন করা হয়েছিল। সেখানে ১৬ জন গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। এর মধ্যে এক তরুণ ও এক তরুণী মারা গেছেন। তাঁদের বয়স ১৮ বছর থেকে ২২ বছরের মধ্যে। তাৎক্ষণিকভাবে তাঁদের নাম-পরিচয় জানা যায়নি। আহত ১৪ জনকে হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। তবে তাঁদের আঘাত গুরুতর নয় বলে জানান পুলিশ কর্মকর্তা মার্ক সিমনস। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত পুলিশ কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি। এমনকি কতজন মিলে হামলা চালিয়েছিল, তাও জানা যায়নি।

যুক্তরাষ্ট্রে বেশ কিছুদিন ধরেই রচেস্টার শহরের পুলিশ চাপে রয়েছে। এই শহরে গত মার্চে পুলিশের হেফাজতে ড্যানিয়েল প্রুড নামের একজন কৃষ্ণাঙ্গ নিহত হন। গ্রেপ্তার করার সময় তাঁর মাথাসহ পুরো মুখ হুড দিয়ে ঢেকে চেপে ধরা হয়েছিল। এভাবে দুই মিনিট ১৫ সেকেন্ড থাকার পর ড্যানিয়েল প্রুড নিস্তেজ হয়ে পড়েন। তবে সে সময় ঘটনাটি জানাজানি হয়নি। গত মে মাসে মিনেসোটার মিনিয়াপোলিসে কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের গলায় এক পুলিশ সদস্য হাঁটু দিয়ে চেপে ধরেন, এতে তাঁর মৃত্যু হয়। এই মৃত্যুকে ঘিরে দেশটিতে শুরু হওয়া বর্ণবাদবিরোধী ও পুলিশের নির্যাতন বিরোধী আন্দোলনের মধ্যেই চলতি মাসের গোড়ার দিকে ড্যানিয়েল প্রুডের মৃত্যুর ঘটনাটি প্রকাশ্যে আসে।

এরপর চাপের মুখে পদত্যাগ করেন রচেস্টার পুলিশের তৎকালীন প্রধান ল্যা’রন সিংলেটারি। এ ছাড়া এই শহরের সাত পুলিশ সদস্যকে বরখাস্তও করা হয়েছে।

By Abraham

Translate »