Advertisements

 

ক্লাবের আর্থিক অবস্থার কথা চিন্তা করে সিনিয়র দলের খেলোয়াড়দের কাছে বেতন কমানোর প্রস্তাব করেছিলেন বার্তোমেউ। কিন্তু মেসিসহ দলের সবাই সেই প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করেছেন। কিন্তু মেসিরা যে প্রক্রিয়ায় প্রত্যাখ্যান করেছেন সেটাই এখন আলোচিত বিষয়। কারণ বহুল আলোচিত বুরোফ্যাক্স। হ্যাঁ, যে বুরোফ্যাক্সের মাধ্যমে ক্লাব ছাড়ার সিদ্ধান্ত জানিয়ে চমকে দিয়েছিলেন মেসি। এবার তিনি একা নন, তার সতীর্থরাও একই পদ্ধতি অনুসরণ করে ক্লাবের প্রস্তাবে ‘না’ করে দিয়েছেন।

বার্সেলোনার ইতিহাসে সবচেয়ে অজনপ্রিয় প্রেসিডেন্ট সম্ভবত বার্তোমেউ। ক্লাবের সমর্থক থেকে শুরু করে খেলোয়াড়রাও তাকে মেনে নিতে পারছেন না। অবশ্য এর জন্য তিনি নিজেই দায়ী। একের পর বিতর্কে জড়িয়ে নিজের অবস্থান নষ্ট করেছেন তিনি। গ্রীষ্মে দলবদল শুরুর পর মেসির সঙ্গে দ্বন্দ্বে জড়িয়েছেন তিনি। ক্লাবের ইতিহাসের সবচেয়ে সেরা তারকা যখন বিদায় নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেন, সমর্থকরা তখন বর্তমান প্রেসিডেন্টের ওপর ক্ষোভে ফেটে পড়েন। তার বিরুদ্ধে আন্দোলন, বিক্ষোভের পর অনাস্থা প্রস্তাবের ভোটাভুটিও এখন সময়ের ব্যাপার।

মেসিকে কোনোমতে আরও এক মৌসুমের জন্য ধরে রাখতে পারলেও নিজের অবস্থান নড়বড়ে করে ফেলেছেন বার্তোমেউ। ক্লাবের অধিনায়কের সঙ্গে তার সম্পর্ক এখন একেবারেও তলানিতে পৌঁছে গেছে। তার গ্রহণযোগ্যতা এখন এতটাই কম যে ক্লাবের কিছু অর্থ সাশ্রয় করতে খেলোয়াড়দের কাছে বেতন কমিয়ে দেওয়ার প্রস্তাব তুলেও প্রত্যাখ্যাত হলেন। বেতন কমানোর প্রস্তাব নাকচ করে ক্লাবের সিনিয়র খেলোয়াড়রা বার্তোমেউর অফিসে বুরোফ্যাক্স পাঠিয়ে দিয়েছেন।

স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যম ‘আরএসি ওয়ান’ এর রিপোর্টে বলা হয়েছে, খেলোয়াড় ও ক্লাবের কর্মী-কর্মকর্তাদের কাছে বেতনের ৩০ শতাংশ কম নেওয়ার প্রস্তাব করেছিলেন বার্তোমেউ। ২০২২ সালের অক্টোবর পর্যন্ত এভাবেই চলার পরিকল্পনা ছিল বার্সার। এমনকি আগামী ৫ নভেম্বরের মধ্যে বেতন কমানোর ব্যাপারটি নিয়ে আলোচনায় বসার প্রস্তাব দিয়েছিল বার্সার বোর্ড। কিন্তু খেলোয়াড়রা তাতেও রাজি হয়নি।

এদিকে বার্সার বোর্ড প্রতি খেলোয়াড়ের সঙ্গে বেতন কমানো নিয়ে আলাদাভাবে বসার চিন্তা করছে। যদি তাতেও কাজ না হয় তাহলে নাকি জোর করেই বেতন কমানোর সিদ্ধান্ত বাস্তবায়ন করবে বার্সা। কারণ করোনা মহামারির কারণে এরইমধ্যে বার্সার আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ৯৭ মিলিয়ন ইউরো। ফলে খরচ কমানোর জন্য মরিয়া চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বার্তোমেউ।

ক্লাবের কর্মীদের আর্থিক কষ্টের কথা ভেবে মার্চে ৭০ শতাংশ বেতন কম নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন মেসিরা। এতে ক্লাবের আর্থিক ক্ষতির পরিমাণ ১৯ শতাংশ কম হয়েছিল। কিন্তু খেলোয়াড়রা এবার কেন রাজি হচ্ছেন না, তার উত্তর সম্ভবত ওই বুরোফ্যাক্সেই আছে। বুরোফ্যাক্সে কি লিখেছেন মেসিরা, তা জানা গেলেই বোঝা যাবে দ্বন্দ্বটা আসলে কতদূর গড়িয়েছে। বার্তোমেউর সময়ও সম্ভবত ঘনিয়ে এসেছে। ক্লাবের সব খেলোয়াড় একজোট হয়ে তার প্রস্তাব এভাবে নাকচ করে দেওয়া শেষের ইঙ্গিত দিচ্ছে বলেই জানিয়েছে স্প্যানিশ সংবাদমাধ্যমগুলো।

By Abraham

Translate »