Advertisements

যুক্তরাজ্যের অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন মানবদেহে শক্তিশালী রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে তোলার পাশাপাশি বেশ চমৎকারভাবে কাজ করছে বলে জানিয়েছেন বিজ্ঞানীরা। সম্প্রতি প্রকাশিত এক গবেষণায় তারা এই দাবি করেন।

বিশ্বের সম্ভাবনাময় সব করোনা ভ্যাকসিনের মধ্যে তালিকার শীর্ষে থাকা অক্সফোর্ডের এই করোনা ভ্যাকসিন প্রথাগত ভ্যাকসিনসমূহের চেয়ে অনেক উন্নত। সাধারণ ভ্যাকসিন যেখানে দূর্বল কোনো ভাইরাসকে ব্যবহারের মাধ্যমে শরীরে থাকা ভাইরাসটিকে প্রতিহত করে, সেখানে অভিনব অক্সফোর্ড ভ্যাকসিন শরীরকে ভাইরাসের অংশে পরিণত করে। ফলে সেটি দেহে আর কোনো ক্ষতি করতে পারে না।

ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল গবেষক তাদের গবেষণায় জানিয়েছেন, এই পদ্ধতি করোনাভাইরাস নির্মূলের ক্ষেত্রে বেশ কার্যকর।

গবেষণাগারে প্রাণীকোষে এটি প্রয়োগ করে তারা দেখেছেন, ভ্যাকসিনটি কার্যকরভাবে কোভিড প্রোটিনকে নির্দেশাবলী সরবরাহ করে এবং প্রাণীকোষ কয়েক হাজারবার সেটির অনুলিপি সৃষ্টির মাধ্যমে প্রচুর পরিমাণে তা উৎপাদন করে। এর অর্থ হল, কোনো ব্যক্তির রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা তখন রোগ সনাক্তকরণ এবং তাদের অসুস্থ না হয়ে লড়াই করার লক্ষ্যে পরিচালিত হয়।

গবেষণা দলটির প্রধান ব্রিস্টল বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব সেলুলার অ্যান্ড মলিকিউলার মেডিসিন (সিএমএম) বিভাগের সদস্য ডেভিড ম্যাথিউস বলেন, ‘এখন পর্যন্ত ভ্যাকসিনের প্রযুক্তিটি স্পষ্টতার সঙ্গে আমাদের উত্তর সরবরাহ করতে সক্ষম হয়নি, তবে আমরা এখন জানি যে ভ্যাকসিনটি আমাদের প্রত্যাশিত সমস্ত কিছু করছে এবং এটি আমাদের অসুস্থতার বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ক্ষেত্রে একটি সুসংবাদ।’

সমগ্র বিশ্ব যেখানে অক্সফোর্ডের করোনা ভ্যাকসিনের কার্যকারীতা সম্পর্কে নিশ্চিত হতে অপেক্ষা করছে, সেসময়ে এই নতুন গবেষণা প্রতিবেদনের ফলাফল ভ্যাকসিনটিকে সেই সীমা ছাড়িয়ে পরবর্তী ধাপে নিয়ে গেছে।

এদিকে বিজ্ঞানীরা এমন সময় এই তথ্য জানালেন যখন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প করোনা প্রতিরোধে ভ্যাকসিন প্রায় তৈরি বলে মন্তব্য করেছেন।

বৃহস্পতিবার রাতে প্রতিদ্বন্দ্বী প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেনের সঙ্গে সর্বশেষ বিতর্কে তিনি বলেন, কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই করোনার ভ্যাকসিন চলে আসছে এবং সেটি সামরিক বাহিনীর মাধ্যমে দেয়া হবে।

বিজ্ঞানীরা গবেষণায় দেখেছেন যে, ভ্যাকসিনের নির্দেশাবলী কোষ দ্বারা সঠিকভাবে অনুলিপি করা হয়েছিল, ফলে প্রোটিনকে সঠিকভাবে তৈরি করা গিয়েছিল।

অক্সফোর্ড ভ্যাক্সিনের ট্রায়াল দলের প্রধান সারাহ গিলবার্ট বলেছেন, গবেষণাটি নিশ্চিত করে যে, ভ্যাকসিনটি নির্ভুলতার সঙ্গে প্রচুর পরিমান করোনাভাইরাসের স্পাইক প্রোটিন উৎপাদন করে, যা একটি শক্তিশালী ইমিউন ব্যবস্থা তৈরির প্রক্রিয়ার সফলতাকে ব্যাখ্যা করে।

সূত্র: ডেইলি মেইল

By Abraham

Translate »