Advertisements
কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তার সাহায্যে দেখার আগেই স্বয়ংক্রিয়ভাবে ক্ষতিকর কনটেন্ট শনাক্ত করে তা সরিয়ে ফেলবে ফেসবুক। ইতোমধ্যে পোস্ট প্রকাশের নীতিমালা বা কমিউনিটি স্ট্যান্ডার্ড পরিপন্থী বিষয়বস্তু সরিয়ে ফেলেছে জনপ্রিয় এই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম। 
কৃত্তিম বুদ্ধিমত্তা প্রযুক্তির উন্নতির ফলে এখন থেকে ভাইরাল কনটেন্ট প্রধান্য দিয়ে পর্যালোচনা করা হচ্ছে এবং তা প্রযুক্তিগত নিয়ন্ত্রণের আওতায় আনা হচ্ছে এমন তথ্য জানালেন ফেসবুকের কমিউনিটি ইনটেগরিটি টিমের রায়ান বারনেস এবং ক্রিস পাওলো।
মঙ্গলবার (১৭ নভেম্বর) ভার্চ্যুয়াল প্লাটফর্মে সংবাদ সম্মেলন করেন ফেসবুক কর্মকর্তারা।
সে সময় রায়ান বারনেস জানান, চলতি বছরের এপ্রিল থেকে জুনের মধ্যে ৯৯ দশমিক ৬ শতাংশ ভুয়া একাউন্ট, ৯৯ দশমিক ৮ শতাংশ স্প্যাম, ৯৯ দশমিক ৫ শতাংশ সহিংসতামূলক ও গ্রাফিক কনটেন্ট, ৯৮ দশমিক ৫ শতাংশ সন্ত্রাসীমূলক ৯৯ দশমিক ৩ শতাংশ শিশু নগ্নতা ও যৌন নিপীড়নমূলক এবং ৯৫ শতাংশ অন্যান্য ক্ষতিকর ও নীতিমালা পরিপন্থী কনটেন্ট অপসারণ করা হয়েছে।
এসব কাজের জন্য ৫০টিরও বেশি ভাষায় কনটেন্ট পর্যালোচনা করতে পারেন এমন প্রায় ১৫ হাজার কনটেন্ট পর্যবেক্ষক রয়েছে ফেসবুকে। যে টিম বিশ্বের ২০ টিরও বেশি সাইটে কাজ করে থাকে। এমনকি যে কোনও সময়, যে কোনও স্থান থেকে সার্বক্ষণিক পর্যালোচনা করেন বলেও জানান তিনি।
তবে ক্ষতিকর কোনো লিংক শেয়ার হচ্ছে কিনা এমন পর্যবেক্ষণ ছাড়া ম্যাসেঞ্জারে ব্যক্তিগত তথ্য আদান প্রদান দেখা হয় না বলেও দাবি ফেসবুক কর্তৃপক্ষের।

By Abraham

Leave a Reply

Translate »