জীবনে কিছু সমস্যার কোনো সমাধান হয় না: ঐশ্বরিয়া

Advertisements

ভারতের বিনোদনজগতে সময়ের সঙ্গে জায়গা করে নিচ্ছে পাপারাজ্জি সংস্কৃতি। কিছুদিন আগে শাহরুখ খানের স্ত্রী গৌরি খান বলেন, ‘তাঁদের ছোট সন্তান আব্রাম বাইরে বের হতে চায় না। এমনকি বারান্দায় বা বাড়ির উঠানেও নয়। সে ইনডোর গেম খেলে। বেড়াতেও যেতে চায় না কোথাও। এটা ওর শারীরিক আর মানসিক স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর।’
কারিনা কাপুর খান বলেছেন, ‘সেলফি তুলতে গেলেই তৈমুর চিৎকার করে বলে, “মাম্মা, নো পিকচার প্লিজ”।’ এ বিষয়ে জিজ্ঞেস করা হয় ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনকে। তিনি কীভাবে আরাধ্যকে পাপারাজ্জিদের ক্যামেরার ফ্ল্যাশ, ভিড় আর চিৎকার থেকে বাঁচিয়ে রাখেন?

ঐশ্বরিয়া জানান, তাঁরা যে জীবন স্বেচ্ছায় বেছে নিয়েছেন, এটা তারই অংশ। তাঁরা তারকা হতে চেয়েছেন। তাঁরা চেয়েছেন জনপ্রিয়তা। তাই এটা হওয়ার কথাই ছিল।

ঐশ্বরিয়া বলেন, ‘আমরা যে জীবন চেয়েছি, এটা তারই অংশ। তবে হ্যাঁ, বেশ কয়েকবার এমন হয়েছে যে আরাধ্য ভয় পেয়েছে। আমার শিশুসন্তানকে বিনা কারণে ভয় দেখানোর অধিকার কারও থাকতে পারে না। সব মিলিয়ে এটা একটা জটিল পরিস্থিতি। আমাদের এটা মেনে নিতে হবে, মানিয়ে নিতে হবে।’

৪৬ বছর বয়সী এই সাবেক বিশ্বসুন্দরী আরও বলেন, ‘আমরা কোথাও পালিয়ে যাচ্ছি না। পাপারাজ্জিরাও হারিয়ে যাচ্ছে না। আর এখন কে পাপারাজ্জি নয়? যার হাতে একটা মুঠোফোন আছে, সে-ই পাপারাজ্জি। তাই সঙ্গে শিশুসন্তান থাকলে ছবি তোলার জন্য যুদ্ধ বাধিয়ে দেওয়ার কিছু নেই। যেহেতু এর কোনো সমাধান নেই, তাই আমাদের দুই পক্ষকেই দুজনের সুবিধা বুঝে মাঝামাঝি কোনো একটা উপায় খুঁজে বের করতে হবে।’ঐশ্বরিয়া এ–ও বলেন, জীবনে কিছু সমস্যা থাকে, যেগুলোর কোনো সমাধান হয় না।

এটা এমনই একটি বিষয়। তাই সবাইকে সেটা বুঝে একটু সহনশীল পথে হাঁটাই সমীচীন।জানাগেছে, বিনোদিনী চরিত্রের জন্য ঠিক করে রেখেছিলেন ঐশ্বরিয়া রাই বচ্চনকে।

এ ছবিতে অভিনয়ের ব্যাপারে মৌখিক সম্মতি দিয়ে রেখেছেন ঐশ্বরিয়া। যদিও তাঁর সঙ্গে কোনো আনুষ্ঠানিক চুক্তি হয়নি। এ প্রসঙ্গে পরিচালক বলেন, ‘ঐশ্বরিয়া নটি বিনোদিনী ছবিটি করবেন বলে অনেক আগেই মৌখিক সম্মতি দিয়েছিলেন। এরপর করোনা এসে সব গন্ডগোল করে দিল। দীর্ঘদিন ঐশ্বরিয়ার সঙ্গে ছবির ব্যাপারে আর কথা হয়নি। চিত্রনাট্যের কাজ শেষ হলেই তাঁর সঙ্গে আবার যোগাযোগ করব।’

ঐশ্বরিয়া ছাড়া দ্বিতীয় কোনো অভিনেত্রীর নাম ভেবে রেখেছেন? তিনি বলেন, ‘না। আমার প্রথম এবং একমাত্র পছন্দ ঐশ্বরিয়া। তাই তাঁকে ছাড়া অন্য কাউকে ভাবতে পারছি না।’