আবারও বির্তকে ‘মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ’

Advertisements

কলকাতার খ্যাতিমান পরিচালক ও চিত্রনায়িকা শ্রাবন্তীর সাবেক স্বামী রাজীব বিশ্বাসের বিরুদ্ধে কাস্টিং কাউচের অভিযোগ করে আলোচনায় এসেছিলেন মডেল-অভিনেত্রী শান্তা পাল। এবার ‘মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ ২০২১’ প্রতিযোগিতায় অনিয়মের অভিযোগ এনেছেন তিনি।

মঙ্গলবার রাতে ফেসবুক লাইভে এসে এই অনিয়মের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানান শান্তা।

লাইভে শান্তা বলেন, মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশ অডিশনে আমি প্রায় চার ঘণ্টা ছিলাম। আমার সঙ্গে আরো ছয়জন ছিলেন। মাঝে হঠাৎ দেখি আমাদের সিনিয়র একজন মডেল ভেতরে ঢুকলেন। তার নাম মিথিলা। ভাবলাম হয়তো কোনো কাজে তিনি এসেছেন। এরপর বের হয়ে তিনি  ক্যামেরার সামনে সাক্ষাৎকার দিচ্ছিলেন।

তিনি যা বললেন তা শুনে আমি অবাক। তিনি নাকি প্রতিযোগিতায় নির্বাচিত হয়েছেন! এমন ঘটনার পর মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশের কর্তৃপক্ষের একজনকে ফোন দেন শান্তা।

এই প্রসঙ্গে তিনি আরো বলেন, আমি যখন ফোন দিলাম আমাকে বলা হলো মিথিলা আপু আগেই অডিশন দিয়ে গেছেন। কিন্তু আমার সিরিয়াল ছিল ১৯২, আর মিথিলা আপুর ছিল ২০০ এর র ওপরে। তাহলে তিনি কীভাবে আগে অডিশন দিলেন।

তিনি আরো বলেন,  মিস ইউনিভার্সের সব প্রতিযোগীরা কোথায়? তোমরা কি দেখোনি মিথিলা অডিশন দেয়নি? তোমরা তো বলেছিলে, এই খোলা জামার মেয়ে অডিশন দেয়নি। আজ তোমরা কই গেলা। হ্যাঁ, ভিআইপি অডিশনের বিষয় আলাদা। নিজের সামনেই ক্যামেরার সামনে ইন্টারভিউ নিতে দেখেছিলাম। আর সেটি অডিশনের আগে। গর্বিত বাংলাদেশ! ভালো তো!

 

তবে এই বিষয়টিকে মিথ্যাচার বলে দাবি করেছেন মিস ইউনিভার্স বাংলাদেশের ন্যাশনাল ডিরেক্টর শফিক ইসলাম।

এ বিষয়ে তিনি বলেন- যারা বাদ পড়েছে, তারা নিজেদের প্রথম পঞ্চাশে দেখতে না পেয়ে হিংসায় এই ধরনের মিথ্যাচার করছে।