বঙ্গবন্ধুকে শ্রদ্ধা জানিয়ে ১ টাকা পারিশ্রমিক নিলেন শুভ

Advertisements

শুভ শর্ত দিয়েছিলেন, সম্মানি নেবেন এক টাকা। তিনি বলেন, ‘অর্থ দিয়ে হয়তো পার্থিব কিছু সুখ পাওয়া যাবে, কিন্তু আত্মার তৃপ্তি মিলবে না’

আরিফিন শুভ, বর্তমানে বাংলাদেশের সেরা চলচ্চিত্র অভিনেতাদের একজন। বিনোদন জগতে পা রাখেন মডেলিং দিয়ে। পরবর্তীতে কাজ করেন নাটকে। তিনি “জাগো (২০১০)” চলচ্চিত্রের মাধ্যমে চলচ্চিত্রের ভুবনে পা রাখেন। ছোটপর্দা দিয়ে শুরু করলেও বর্তমানে বাংলা চলচ্চিত্রে দৃঢ় অবস্থান তার। কাজ করেছেন বড় বাজেটের বহু ছবিতে। তার অভিনীত একাধিক সিনেমা মুক্তির প্রতীক্ষায় আছেন দর্শকরা। তবে সাম্প্রতিক এই অভিনেতা যে সিনেমাটি নিয়ে বাংলাদেশ-ভারতে আলোচিত, সেটি খ্যাতিমান নির্মাতা শ্যাম বেনেগালের নির্মিতব্য “বঙ্গবন্ধু”।

বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ প্রযোজনা। বড় বাজেট। এমন একটা ছবিতে মূল চরিত্রে অভিনয়ের জন্য শুভ পারিশ্রমিক নিয়েছেন এক টাকা! বিশ্বাস করতে কষ্ট হলেও এটাই সত্যি। আর এ সংক্রান্ত একটি চেক নিজেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে শেয়ার করেছেন শুভ। ওই পোস্টে তিনি লিখেছেন,  “শর্ত একটাই, সম্মানি নেব এক টাকা। অর্থ দিয়ে হয়তো পার্থিব কিছু সুখ পাওয়া যাবে, কিন্তু আত্মার তৃপ্তি মিলবে না।”

যে চেকটি এখন ভাইরাল! অনেকেই মনে করেছিলেন, শুভর নামে এক টাকার চেকটি হয়তো ভুল কিংবা কোনো বিভ্রাটের ফল! কিন্তু পরিষ্কার করলেন এই নায়ক। বললেন, “বঙ্গবন্ধুতে অভিনয় করতে শর্ত ছিল একটাই, সম্মানি নেব এক টাকা।”

বঙ্গবন্ধুর প্রতি শুভর এমন শ্রদ্ধা আর ভালোবাসায় মুগ্ধ তার সহকর্মী ও ভক্ত অনুরাগীরাও। পারিশ্রমিক পাওয়া ১ টাকার চেকটি তাই অনেকেই শেয়ার করছেন। ইতিবাচক মন্তব্যর পাশাপাশি শুভর এমন ত্যাগে অনেক অভিনেতা অভিনন্দনও জানাচ্ছেন।

২০১৯ সালের ৬ ফেব্রুয়ারিতে বঙ্গবন্ধুতে অভিনয়ের আনুষ্ঠানিক প্রস্তাব পান আরিফিন শুভ। তার আগে পাঁচ দফা অডিশন হয়। দুবার ভারতে, তিনবার বাংলাদেশে। আনুষ্ঠানিকভাবে তাকে চূড়ান্ত করার দিন শুভর কাছে জানতে চাওয়া হয়, কোনো শর্ত আছে?

এরইমধ্যে “বঙ্গবন্ধু”র বেশির ভাগ শুটিং হয়েছে। মুম্বাইয়ে হয়েছে সেই শুটিং। কয়েক দফায় বাংলাদেশি অভিনয় শিল্পীরা সেখানে গিয়েছেন। শিগগিরই বাংলাদেশ অংশের শুটিং শুরু করবেন নির্মাতা শ্যাম বেনেগাল। শোনা যাচ্ছে আগামী সেপ্টেম্বরে হবে বাকি অংশের কাজ। চলচ্চিত্রটিতে বঙ্গবন্ধুর চরিত্রে অভিনয় করছেন আরিফিন শুভ এবং প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছোটবেলার চরিত্রে আছেন নুসরাত ফারিয়া। এছাড়া তাজউদ্দীন আহমেদ চরিত্রে রিয়াজ আহমেদ এবং বঙ্গবন্ধুর স্ত্রী ফজিলাতুন্নেছা মুজিবের ভূমিকায় অভিনয় করছেন নুসরাত ইমরোজ তিশা।

এ প্রসঙ্গে তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, “শুনেছি, বঙ্গবন্ধু তার জীবনের ১১ বছর ৪ মাস ২২ দিন কারাগারে কাটিয়েছেন। এই মানুষটার চরিত্রের অন্যতম বৈশিষ্ট্য স্যাক্রিফাইস। জীবদ্দশায় মানুষ ও দেশের জন্য কেবল ত্যাগই করে গেছেন। বঙ্গবন্ধুর সাহস ও স্যাক্রিফাইসের কাছে আমার এই স্যাক্রিফাইস কিছুই না। মনে হয়েছে, এই সামান্য স্যাক্রিফাইসের মাধ্যমে তার চরিত্রের গভীরতা কিছুটা হলেও উপলব্ধি করতে পারব। সেই ভাবনা থেকেই পরিচালককে বলেছিলাম, প্রাপ্য যা–ই হোক, আমি নেব না। এ–ও বলেছিলাম, যেহেতু আমার রক্ত, ঘাম সবই এই সিনেমায় থাকবে, পরিশ্রম করব—ফ্রি কাজ করব না। আমি এক টাকা নেব, নিয়েছি। বাংলাদেশের একজন অভিনয়শিল্পী হিসেবে বঙ্গবন্ধুর চরিত্রে অভিনয় অনেক বড় সম্মান।”

Leave a Reply