আম্পায়ার স্বেচ্ছাবধির হলে এখানে সাকিব আল হাসানের আপিল আর কলাগাছের আপিল আসলে একই।

Advertisements

আম্পায়ারের সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে অশোভন প্রতিবাদ জানিয়ে নিয়ম ভেঙেছেন সাকিব।পরের দুটিতে তো আঘাত করেছেন ক্রিকেটীয় চেতনায়ও।

এ ধরনের অপরাধে যেকোনো ক্রিকেটারেরই শাস্তি হওয়ার কথা। সাকিবও ব্যতিক্রম নন। ক্রিকেটের ধারা-উপধারা বিবেচনা করে ম্যাচ রেফারি নিশ্চয়ই তাঁকে প্রাপ্য শাস্তি দেবেন। সে সিদ্ধান্ত হয়ে যাওয়ার কথা আজই।

কিন্তু এই যে ক্রিকেটীয় চেতনা, সেটি আসলে কী? অল্প কথায় তা বোঝানো কঠিন। তারপরও চেষ্টা করা যাক। ধরুন, বোলার বল ছাড়ার আগেই ক্রিজ থেকে বেরিয়ে যাওয়া নন–স্ট্রাইকিং প্রান্তের ব্যাটসম্যানকে ‘মানকাডিং’ আউট করাটা যেমন এই খেলার চেতনার সঙ্গে যায় না, তেমনি মাঠে যেকোনো ধরনের অসদাচরণ, আম্পায়ারের সিদ্ধান্ত ভুল হলেও তার প্রতিবাদ করা—সবই ক্রিকেটের চেতনাবিরোধী।

মোটকথা, ক্রিকেট খেলার সৌন্দর্যহানি ঘটায়, এমন যেকোনো কিছুই ক্রিকেটীয় চেতনার সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

কিন্তু ঢাকার ক্লাব ক্রিকেটের যে বাস্তবতা, সেখানে ক্রিকেটীয় চেতনার কবর আরও অনেক আগেই রচিত হয়ে গেছে।

নিচের দিকের লিগে এমনও দেখেছি, পক্ষপাতমূলক সিদ্ধান্তের প্রতিবাদ জানিয়ে খেলোয়াড় আম্পায়ারকে মুখের ওপর ‘চোর’ বলছেন। আম্পায়ারও সেটি অম্লানবদনে মেনে নিচ্ছেন। ওই ক্রিকেটারের বিরুদ্ধে আম্পায়ার পরেও কোনো রিপোর্ট করেননি। ক্রিকেটারের শাস্তিও হয়নি। কারণ, আম্পায়ার জানতেন, তিনি আসলেই কোনো বিশেষ ক্লাবকে সুবিধা দিতে গিয়ে ‘চুরি’ করেছেন।

বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে এ রকম আরও অনেক ঘটনাই আছে, ক্রিকেট–উন্নত বিশ্বের দেশগুলো যেসব দেখলে বা জানলে ক্রিকেটের চেতনা সম্পর্কে তাদের ধারণায়ও প্রকাণ্ড ধাক্কা লাগবে।

ভুল আউটের প্রতিবাদ জানিয়ে ব্যাটসম্যান উইকেটের ওপর বসে আছেন। খেলা বন্ধ।আম্পায়ার খেলোয়াড়কে অনুনয় করে বলছেন, ‘আমার কিছু করার নেই। আজ তোমাদের হারাতেই হবে। নইলে আমি আর ম্যাচ পাব না।’ বছর দুয়েক আগে ফতুল্লা স্টেডিয়ামে এমন দৃশ্যেরও অবতারণা হয়েছে।মাঠে যাঁরা ক্রিকেটের আইন ফলাবেন, ক্রিকেটের চেতনা যাঁদের ছায়ায় টিকে থাকবে, তাঁরা আম্পায়ার–ম্যাচ রেফারি।

দুর্ভাগ্যজনক হলেও সত্যি, মাঠে ক্ষমতাসীন ক্লাবগুলোর নগ্ন প্রতিনিধিত্ব করে বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের আম্পায়ার, ম্যাচ রেফারিরা অনেক আগেই সেই মর্যাদার আসন হারিয়েছেন। খেলোয়াড়দের আড্ডায় এসব ম্যাচ কর্মকর্তাকে এমন এমন মুখরোচক নামে ডাকা হয়, যেগুলো শুনলে লজ্জায় তাঁরা আর মাঠমুখী হতেন কি না সন্দেহ। একের পর এক বাজে আম্পায়ারিংয়ের ঘটনা এবং ভুক্তভোগী ক্লাবগুলোর লিখিত অভিযোগের পরও বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) আজ পর্যন্ত কোনো আম্পায়ারের বিরুদ্ধে তদন্ত করেছে বা কাউকে শাস্তি দিয়েছে বলে শোনা যায়নি। বাজে আম্পায়ারিং নিয়ে কখনো খুব শোরগোল পড়ে গেলে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান আশ্বাস দেন সব ঠিক হয়ে যাওয়ার। কিন্তু ঠিক আর হয় না।

বরং মাঠে বিশেষ বিশেষ ক্লাবকে অন্যায় সুবিধা দিয়ে সেই আম্পায়ার-ম্যাচ রেফারিরা সময়ের সঙ্গে আরো বেশি সুবিধাভোগীই হয়েছেন। আর তাঁদের পক্ষপাতমূলক সিদ্ধান্তে অন্যায়ভাবে ম্যাচ জিতে প্রভাবশালী ক্লাবগুলো পয়েন্ট তালিকায় থাকছে ওপরের দিকে। নিশ্চিত করছে বিসিবির নির্বাচনে নিজেদের শক্ত অবস্থান। কাল যে স্টাম্পের ওপর সাকিবের পা উঠল, সেটি তাই এক দিনে হয়নি। এটা ঠিক, একটা অন্যায়ের প্রতিবাদ কখনো আরেকটা অন্যায় দিয়ে হয় না। স্টাম্পে লাথি মেরে, স্টাম্প উপড়ে ফেলে সাকিব বড় ভুলই করেছেন। বাংলাদেশের ক্রিকেটে চরম বাজে এক উদাহরণ হয়ে থাকবে এই ঘটনা।

কিন্তু কাল মুশফিকুর রহিমের বিরুদ্ধে করা এলবিডব্লুর আবেদন আম্পায়ারের কানে প্রতিহত হয়ে আসার পর ওয়ানডের বিশ্বসেরা অলরাউন্ডারও নিশ্চিত বুঝে গেছেন বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের বাস্তবতা। আম্পায়ার স্বেচ্ছাবধির হলে এখানে সাকিব আল হাসানের আপিল আর কলাগাছের আপিল আসলে একই।

বিশেষ কিছু ক্লাবকে অন্যায় সুবিধা দিতে গিয়ে কিছু আম্পায়ার যেভাবে ম্যাচের পর ম্যাচ অন্য ক্লাবের খেলোয়াড়দের সাফল্যবঞ্চিত করে চলেছেন, বিশ্ব তারকা সাকিবকে দেখে এবার সেই খেলোয়াড়েরাও যদি তাঁর মতো প্রতিবাদী হতে শুরু করেন! মাঠের আইন তুলে নিতে থাকেন নিজেদের হাতে, পায়ে কিংবা অন্য কোনোভাবে!

সাকিবের লাথি বড় এক অশনিসংকেতেরই বোধ হয় ডাক দিল বাংলাদেশের ক্রিকেটে। তবে সাকিব অন্যায় করেছেন, এটা যেমন ঠিক, তাঁর শাস্তি পাওয়াটা যেমন উচিত; একইভাবে কথাও বলতে দ্বিধা নেইনোংরা ক্লাবরাজনীতিতে কলুষিত বাংলাদেশের ঘরোয়া ক্রিকেটের জন্য রকম একটা লাথি বড় দরকার ছিল

সূত্রঃ প্রথম আলো।