‘মাস্ক টেনে খুলে দেখলাম, বন্ধুটা আসলে কে…’

Advertisements

‘স্কুলে ঢুকতেই একজন ডাক দিল। আমি তো চিনতেই পারছি না। প্রথমেই আমি ওর মাস্ক টেনে খুলে দেখলাম, বন্ধুটা আসলে কে…।’ কথা শেষ করার আগেই হাসির রোল পড়ল বন্ধু আড্ডায়। গতকাল রবিবার রাজধানীর বনশ্রী এলাকার আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে গিয়ে লম্বা বিরতির পর প্রথম দিন স্কুলে আসার অভিজ্ঞতা জানতে চাইলে দশম শ্রেণির ছাত্রী আনিকা মাহজাবিনের কাছ থেকে এমনই উত্তর মিলল। আনিকার পাশেই দাঁড়ানো ছিল তার তিন বন্ধু ত্বোফা-তুজ-জিকরা, কাসফিয়া জারিন ঈশা ও জান্নাতুল ইয়াকুব তানিন।

কিছুক্ষণ পর প্রতিষ্ঠানটির পেছনের গেটের কাছে দাঁড়িয়ে এক শিক্ষার্থীকে ডেকে কথা বলতে গেলে আরো চার শিক্ষার্থী উত্ফুল্ল ভঙ্গিতে এগিয়ে এসে এই প্রতিবেদককে বলল, ‘আমরা সবাই কথা বলতে চাই।’ সেখানে দাঁড়িয়েই কথা হয় দশম শ্রেণির ছাত্রী সানজিদা বিনতে কামাল, আরিয়ানা ইসলাম খেয়াল, আন্নিসা আমির, তাসনিম অরিন ও মুনিয়ার সঙ্গে। সমস্বরে এই পাঁচ বন্ধু বলে ওঠে, ‘ক্লাস টেনে (দশম) উঠে প্রথম ক্লাস করতে পারছি এটাই আমাদের জন্য যথেষ্ট। আমাদের স্কুলে আসতে হবে, ফ্রেন্ডদের সঙ্গে মজা করতে হবে। তবে পরীক্ষাটা যদি একটু কমিয়ে দেয়, তাহলে ভালো হয়।’

গতকাল দীর্ঘ বিরতি শেষে নিজেদের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে পা রেখে এভাবেই নিজেদের হাসি-আনন্দ আর উচ্ছ্বাসের কথা জানাল শিক্ষার্থীরা। গতকাল দুপুর ১২টার দিকে আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজের মূল গেট দিয়ে ঢোকার সময় চোখে পড়ে করোনাকালের স্বাস্থ্যবিধির বড় নির্দেশিকা। সামাজিক দূরত্ব মেনে শিক্ষার্থীরা শ্রেণিকক্ষে ঢোকার জন্য সার বেঁধে দাঁড়িয়ে আছে। শিক্ষার্থীদের বরণ করে নেওয়ার জন্য প্রতিষ্ঠানটির গেট থেকেই আঁকা হয়েছে আল্পনা। নানা রঙের বেলুন দিয়ে সাজানো হয়েছে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি।

শিক্ষার্থী মার্জিয়া ফারহানা মুনিয়া বলে, ‘ভাবছিলাম, স্কুল যেমন রেখে গিয়েছিলাম তেমনই থাকবে। তবে আইসা দেখি স্কুল সাজানো হইছে। আল্পনা এঁকে সুন্দরভাবে ডেকোরেট করা হইছে। তবে সবাইকে দূরে দূরে, প্রতিটি বেঞ্চে একজন করে বসাইছে। এতে খুব বিরক্ত হইছি। মাস্কের জন্য অনেককে চিনতেই পারি নাই। ভাবছিলাম অনেকে বাচ্চাকাচ্চা নিয়া আসবে। সেটা হয় নাই। তবে একজনের বিয়ে হয়ে গেছে।’

এত খুশির মধ্যে ছিল কিছু দুঃখও। দশম শ্রেণির আহমেদ দুঃখ ভারাক্রান্ত মন নিয়ে বলে, ‘একদিক দিয়ে ভালো লাগতেছে, আরেকদিক দিয়ে খারাপ লাগতেছে। কভিডের একটা আতঙ্ক তো থাকতেছেই। আমাদের এক বন্ধুর আজই (রবিবার) করোনা ধরা পড়ায় ও স্কুলে আসতে পারে নাই। মন খারাপ লাগছে।’

 

Leave a Reply