ভূমিকম্পে হেলে পড়েছে দুইটি বহুতল ভবন!

Advertisements

ভূমিকম্পে নগরের কাপাসগোলা চকবাজারের উর্দু গলি ও খাজা রোডের সাবানঘাটা এলাকায় দু’টি ভবন হেলে পড়ার খবর পাওয়া গেছে।

শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) ভোরে শক্তিশালী ভূমিকম্পের পর নগরে এ দু’টি ভবন হেলে পড়ে।

তবে রাঙ্গুনিয়াসহ বিভিন্ন উপজেলায় বেশ কয়েকটি মাটির ঘরের দেয়াল ভেঙে পড়েছে। এ ছাড়া জরাজীর্ণ কিছু ভবন ও সীমানা প্রাচীরে ফাটল দেখা দিয়েছে।

শুক্রবার (২৬ নভেম্বর) ভোর ৫টা ৪৫ মিনিটে এ ভূ-কম্পন অনুভূত হয়। এ ভূমিকম্পের উৎপত্তিস্থল ছিল মিয়ানমারের চিন রাজ্যের রাজধানী হাখা শহরের ২০ কিলোমিটার উত্তর উত্তর-পশ্চিমে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইউনাইটেড স্টেটস জিওলজিক্যাল সার্ভে (ইউএসজিএস) ও আর্থকোয়াকট্র্যাকার ডটকম জানায়, বাংলাদেশের স্থানীয় সময় ৫টা ৪৫ মিনিটের এ ভূমিকম্পের মাত্রা ছিল ৫.৮।

সূত্র জানায়, সকালের ভূমিকম্পে চট্টগ্রাম নগরের উর্দু গলিতে ‘রহমান ভিলা’ নামে একটি চারতলা ভবন পাশের পাঁচতলা ভবনে হেলে পড়ে। আর খাজা সড়কের সাবানঘাটা এলাকায় চারতলা ভবন হেলে পড়েছে পাশের সমান উচ্চতার আরেকটি ভবনের ওপর। হেলে পড়া ভবনের বাসিন্দারা উদ্বিগ্ন হলেও স্বাভাবিক নিয়মে বসবাস করছেন। তবে ভবন মালিকদের দাবি এগুলো আগে থেকেই এমনটি ছিল।

চট্টগ্রাম উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (সিডিএ) প্রধান প্রকৌশলী কাজী হাসান বিন শামস বলেন, নগরের দু’টি এলাকায় ভবন হেলে পড়ার খবর পেয়েছি। ফায়ার সার্ভিস ও সিডিএর টিম ভবনগুলো পরিদর্শন করছে। খাজা রোডের চারতলা ভবনটি একটু হেলে পড়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন আমাদের টিমের সদস্যরা। চকবাজারের ভবনটি পরিদর্শন করে টিম এখনো রিপোর্ট দেয়নি।

তিনি জানান, শনিবার ফাইনালি পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে যদি ঝুঁকিপূর্ণ বিবেচিত হয় তবে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনকে (চসিক) ভবন ভাঙার জন্য চিঠি দেওয়া হবে।